উইন্ডোজ ১১ ব্যবহার করতে পারবে কম দক্ষরাও

অনলাইন ডেস্ক।।

নতুন নতুন সব ফিচার নিয়ে বাজারে এসেছে উইন্ডোজ ১১। গত ৫ অক্টোবর মাইক্রোসফটের কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেমের নতুন ভার্সন উইন্ডোজ ১১ চালু করা হয়। উইন্ডোজ ১০ ব্যবহারকারীরা বিনা মূল্যে উইন্ডোজ ১১ ব্যবহার করার সুযোগ পাবে।

এ বিষয়ে মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ প্রধান বলেন, নতুন ভার্সনটি ব্যবহারকারীদের জন্য পরিচ্ছন্ন এবং সহজতর করে তৈরি করা হয়েছে। প্রযুক্তি সম্পর্কে সবচেয়ে কম জানা মানুষও নতুন এ সিস্টেম সহজেই আপগ্রেড করতে পারবেন।

তিনি বলেন, নতুন এই অপারেটিং সিস্টেম ট্রায়ালের কাজ শেষ করে ব্যবহারকারীদের জন্য এখন সম্পূর্ণ প্রস্তুত করা হয়েছে।

উইন্ডোজ ১১ তে বেশ কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। টাস্কবারের একেবারে কেন্দ্রে ডিফল্ট আকারে থাকবে স্টার্ট মেন্যু। পাশাপাশি থাকবে অন্যান্য আইকন। স্টার্ট বাটনে ক্লিক করলে এটি বারবার ব্যবহৃত অ্যাপস সম্বলিত একটি মেন্যু সামনে নিয়ে আসবে। কিছু ক্ষেত্রে এটি স্মার্টফোনের অ্যাপ মেন্যু কিংবা লঞ্চারের মতো মনে হতে পারে।

উইন্ডোজ ১০-এর স্টার্ট মেন্যুতে যে ‘টাইলস’ আছে, নতুন অপারেটিং সিস্টেম থেকে সেটি বাদ দিয়েছে মাইক্রোসফট। মূলত উইন্ডোজ ৮-এ স্টার্ট মেন্যু থেকে এটি পুরোপুরি বাদ দেওয়া হয়েছিল। এর কারণে বহু ব্যবহারকারী সমস্যায় পড়েছিলেন। এবার আর এটিকে বাদ দেওয়া হয়নি।

তবে স্টার্ট মেন্যুতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। ব্যবহারকারীর সুবিধার জন্য এবার উইন্ডোজ-১১ তে স্টার্ট বাটন আছে স্ক্রিনের একেবারে মাঝখানে।

২০০৭ সালের উইন্ডোজ ভিস্তার গুরুত্বপূর্ণ একটি ফিচার উইজেট ফিরিয়ে আনা হয়েছে। তবে তখন উইজেটকে স্ক্রিনে যে কোনো জায়গায় ইচ্ছেমতো রাখা যেত। কিন্তু এখন উইজেটগুলো বামপাশের একটি সাইডবারে থাকবে। এগুলো যুক্ত থাকবে মাইক্রোসফট সার্ভিসের সঙ্গে।

উইন্ডোজ ১১-এর সবচেয়ে বিস্ময়কর ব্যাপার হচ্ছে, উইন্ডোজ ১১-তে অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের জন্য তৈরি অ্যাপসগুলোও চলবে। এটি হবে অ্যামাজন অ্যাপ স্টোরের মাধ্যমে।

সম্প্রতি মাইক্রোসফট নতুন কিছু হার্ডওয়্যারও উন্মুক্ত করেছে, যেগুলো উইন্ডোজের নতুন ভার্সনটির সঙ্গে সম্পর্কিত। তবে যেসব ব্যবহারকারী উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করছেন, তাদের কম্পিউটার সচল থাকলে নতুন এ হার্ডওয়্যারগুলোর জন্য খরচ করতে হবে না। উইন্ডোজ ১০-ই ২০২৫ সাল পর্যন্ত নিরাপত্তা আপডেট ও সাপোর্ট পেতে থাকবে। সূত্র: বিবিসি