আড়াই মাসেও উপাচার্য পায়নি হাবিপ্রবি

প্রকাশিত: ১১:১৯ অপরাহ্ণ, রবি, ১৮ এপ্রিল ২১

নিউজ ডেস্কঃ

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (হাবিপ্রবি) ৬ষ্ঠ উপাচার্য অধ্যাপক ড. মু. আবুল কাসেমের মেয়াদ শেষ হয় গত ৩১ জানুয়ারি। মেয়াদ শেষের ৭৭ দিন পেরিয়ে গেলেও উপাচার্য পায়নি বিশ্ববিদ্যালয়টি। রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য দিয়ে চলছে প্রশাসনিক ও একাডেমিক কার্যক্রম।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার শাখা থেকে জানা যায়, ২০১৭ সালের ২ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের অধ্যাপক ড. মু. আবুল কাসেমকে চার বছরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দেয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। গত ৩১ জানুয়ারি তার মেয়াদ শেষ হয়।
তবে মেয়াদ শেষ হওয়ার ১৯ দিন আগেই ছাত্রলীগের আন্দোলনের মুখে ভোর রাতে সস্ত্রীক ক্যাম্পাস ত্যাগ করেন উপাচার্য। এ সময় তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. বিধান চন্দ্র হালদারকে রুটিন দায়িত্ব পালনের কথা জানিয়ে চিঠি দেন। কিন্তু ২ ফেব্রুয়ারি আদেশ অনুসারে রুটিন দায়িত্বও শেষ হয়ে যায়। এরপর শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২২ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষকে স্থায়ী উপাচার্য নিযুক্ত না হওয়া পর্যন্ত রুটিন দায়িত্ব পালনের অফিস আদেশ জারি করে।

রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য নিয়োগ হলেও একজন উপাচার্য যে কার্যসম্পাদন করতে পারে সে কার্যক্রম একজন রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য করতে পারে না। নির্দিষ্ট সীমাবদ্ধ থেকে উপাচার্যের কার্যক্রম চালিয়ে নিতে হয় রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্যকে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম সচল রাখতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে অতিদ্রুত উপাচার্য নিযুক্তের বিষয়টি জানানো হলেও এখন পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট দপ্তর কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করে নি।
এদিকে, উপাচার্য না থাকায় অর্থ সংক্রান্ত অনুমোদন, শিক্ষক-কর্মকর্তাদের পদোন্নতি, শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগের কার্যক্রমও বন্ধ হয়ে রয়েছে।
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রুটিন দায়িত্ব প্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. বিধান চন্দ্র হালদার জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কাজ সচল রাখতে স্থায়ী উপাচার্য নিযুক্ত জরুরি। আমিও চাই অতিদ্রুত স্থায়ী উপাচার্য নিযুক্ত করা হোক।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.