অধিকার ও সত্যের পক্ষে

গ্রেফতার হচ্ছেন ভিকারুননিসার অধ্যক্ষসহ ৩ শিক্ষিকা

 নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার প্ররোচনাকারী হিসেবে অভিযোগ ‘প্রমাণিত’ হওয়ায় গ্রেফতার হচ্ছেন ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের বরখাস্তকৃত ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষিকা। তারা হচ্ছেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখার শিফট ইনচার্জ জিনাত আখতার ও প্রভাতী শাখার শ্রেণিশিক্ষিকা হাসনাহেনা।

মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, বুধবার দুপুরে অরিত্রির মামলাটি ডিবিতে স্থানান্তর করা হলেও মঙ্গলবার রাত থেকেই এর ছায়া তদন্ত শুরু করে ডিবি। নজরদারিতে রাখা হয়েছে অভিযুক্ত তিন শিক্ষিকাকে। যেকোনো সময় তাদের গ্রেফতার করা হবে।

এদিকে অরিত্রির আত্মহত্যার ঘটনায় ব্যবস্থা নিতে বুধবার বিকেলে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ ও ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়ার কাছে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানিয়ে একটি চিঠি পাঠিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। চিঠি পাঠানোর পরপরই তাদের গ্রেফতারের বিষয়টি আরও সুস্পষ্ট হয়।

এ বিষয়ে র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক (সিও) লে. কর্নেল এমরানুল হাসান বলেন, অরিত্রির আত্মহত্যার ঘটনাটি র‌্যাব অবগত। গণমাধ্যমে খবর শুনেছি, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় চিঠি দিয়েছে। আমরা চিঠিটি এখনও হাতে পাইনি। চিঠি পেলেই আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

গ্রেফতারের বিষয়ে জানতে চাইলে ডিবি পূর্ব বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) খন্দকার নুরুন্নবী বলেন, এই মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব আমাদের দেয়া হয়েছে। আমরা মামলার অফিসিয়াল কাগজ এখনও পাইনি। এ ছাড়া মন্ত্রণালয়ের চিঠিটি এখনও হাতে আসেনি। চিঠিতে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা থাকলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ডিবি কর্মকর্তা বলেন, তদন্তভার পাওয়ার পরপরই স্কুলে গিয়ে সেদিনের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করেছে ডিবি। শিক্ষক ও অরিত্রির পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছে। এরপর থেকেই অভিযুক্তদের নজরদারিতে রাখা হয়েছে।

শিক্ষা বার্তা-আ.আ.হ/মৃধা

একই ধরনের আরও সংবাদ