অধিকার ও সত্যের পক্ষে

ইতিহাসে আজকের দিনে।। বাংলাদেশকে ভারত-ভুটানের স্বীকৃতি

 শিক্ষাবার্তা ডেস্ক।।

ইতিহাস আজীবন কথা বলে। ইতিহাস মানুষকে ভাবায়, তাড়িত করে। প্রতিদিনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা কালক্রমে রূপ নেয় ইতিহাসে। সে সব ঘটনাই ইতিহাসে স্থান পায়, যা কিছু ভালো, যা কিছু প্রথম, যা কিছু মানবসভ্যতার অভিশাপ-আশীর্বাদ।

তাই ইতিহাসের দিনপঞ্জি মানুষের কাছে সবসময় গুরুত্ব বহন করে। এই গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে শিক্ষাবার্তা ডট কম পাঠকদের জন্য নিয়মিত আয়োজন ‘ইতিহাসের এই দিন’।

০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার। ২২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ। এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনা
৭৩১- সমরখন্দের তৃতীয় যুদ্ধ শুরু হয়।
১৭৬৮- বিশ্বকোষ এনসাইক্লোপেডিয়া ব্রিটেনিকা প্রথম প্রকাশিত হয়।
১৮৫৭- কানপুরের যুদ্ধে স্যার কলিন ক্যাম্পবেল বাহিনীর কাছে সিপাহি বিদ্রোহীদের পরাজয়।
১৮৬৫- যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানের চতুর্দশ সংশোধনী অনুযায়ী দাসত্ব প্রথা নিষিদ্ধ হয়।
১৮৭৭- বিখ্যাত পত্রিকা ওয়াশিংটন পোস্ট প্রথম প্রকাশ হয়।
১৯১৭- ফিনল্যান্ড রাশিয়ার কাছ থেকে মুক্ত হয়ে স্বাধীনতা লাভ করে।
১৯২২- স্বাধীন আইরিশ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠা।
১৯৪২- কলম্বাস কর্তৃক হাইতি আবিষ্কার।
১৯৭১- স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশকে ভারত সরকার স্বীকৃতি দেয়।

এই দিন বেলা ১১টায় ‘অল ইন্ডিয়া রেডিও’ মারফত ঘোষণা করা হয়, ভারত বাংলাদেশকে সার্বভৌম রাষ্ট্র বলে স্বীকৃতি দিয়েছে। তখনকার ভারতের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন ইন্দিরা গান্ধী। ভারতের পার্লামেন্টের বিশেষ অধিবেশনে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেওয়ার প্রস্তাব উত্থাপন করে ইন্দিরা গান্ধী বলেন, ‘বাংলাদেশের সব মানুষের ঐক্যবদ্ধ বিদ্রোহ এবং সেই সংগ্রামের সাফল্য এটা ক্রমান্বয়ে স্পষ্ট করে তুলেছে যে, তথাকথিত মাতৃরাষ্ট্র পাকিস্তান বাংলাদেশের মানুষকে স্বীয় নিয়ন্ত্রণে ফিরিয়ে আনতে সম্পূর্ণ অসমর্থ।’

লোকসভায় দাঁড়িয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বলেন, ‘স্বাধীনতা আন্দোলনের ইতিহাসে বিশাল বাধার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের জনগণের সংগ্রাম এক নতুন অধ্যায় রচনা করেছে। সতর্কতার সঙ্গে বিবেচনা করার পর ভারত বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

তবে এ দিন ভুটান বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতি দিয়েছিল। ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর একটি তারবার্তার মাধ্যমে দেশটি বাংলাদেশের পাশে দাঁড়িয়েছিল। ভুটান এবং ভারত উভয় দেশই একদিনে স্বীকৃতি দেয় বাংলাদেশকে।

একই দিন ফেনী ও যশোরে পাক হানাদারদের পরাজিত করে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা ওড়ান মুক্তিযোদ্ধারা।

১৯৯০- বাংলাদেশে ব্যাপক গণআন্দোলনের মুখে সাবেক প্রেসিডেন্ট হোসেইন মুহাম্মদ এরশাদ পদত্যাগ করতে বাধ্য হন। তার পদত্যাগের পর বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমদ অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট নিযুক্ত হন এবং জাতীয় সংসদ বাতিল হয়।

জন্ম
১৭৩২- ভারতের প্রথম গভর্নর ওয়ারেন হেস্টিংস।
১৮২৩- বিখ্যাত ভারত বিদ্যাবিশারদ, সংস্কৃত ভাষার সুপ্রসিদ্ধ পণ্ডিত ও অনুবাদক ম্যাক্স মুলার।
১৮৫৩- গবেষক, সাহিত্যিক ও পাণ্ডুলিপি সংগ্রাহক হরপ্রসাদ শাস্ত্রী।
১৮৯৮- নোবেলজয়ী সুইডিশ অর্থনীতিবিদ কার্ল গুনার মিরডাল।
১৯০১- ভারতের কমিউনিস্ট আন্দোলনের অগ্রণী সংগঠক আবদুল হালিম।
১৯১১- বিপ্লবী দীনেশ চন্দ্র গুপ্ত।
১৯১৭- অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে বীরপ্রতীক খেতাবপ্রাপ্ত একমাত্র বিদেশি মুক্তিযোদ্ধা ডব্লিউ এএস ওডারল্যান্ড।
১৯২৮- ভারততত্ত্বের গবেষক অধ্যাপক তারাপদ মুখোপাধ্যায়।
১৯৭৬- মার্কিন অভিনেত্রী কলিন হাস্কেল।

মৃত্যু
১৮৯২- জার্মান উদ্ভাবক আর্নস্ট ভেরমার সিমেন্স।

একই ধরনের আরও সংবাদ