অধিকার ও সত্যের পক্ষে

মৃত নারীর গর্ভ থেকে প্রথম শিশুর জন্ম !

 শিক্ষা বার্তা ডেস্ক ॥

মৃত নারীর জরায়ু সংযোজন করার পর একটি কন্যা শিশুর জন্ম দিয়েছে ব্রাজিলের এক নারী। এটি বিশ্বের প্রথম এমন সফল ঘটনা দাবি করছে এই চিকিৎসার সঙ্গে জড়িত ডাক্তার দলের প্রধান ডানি এজযেনবের্গ। তিনি তার দলের এই সফলতাকে মেডিকেল মাইলস্টোন হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। দ্য লেনসেট মেডিকেল জার্নালে বুধবার প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে এমনটি জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৬ সালে সেপ্টেম্বরে ৩২ বছর বয়সী ব্রাজিলিয়ান একজন নারীর শরীরে মৃত নারীর জরায়ু প্রতিস্থাপন করা হয়। এরআগে যুক্তরাষ্ট্র, চেক প্রজাতন্ত্র এবং তুরস্কে এই একইভাবে জরায়ু প্রতিস্থাপন করার চেষ্টা করলেও তখন চিকিৎসকরা সফল হতে পারেন নি ।

ব্রাজিলে জরায়ু প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে জন্মানো শিশুটি মায়ের গর্ভে ৩৫ সপ্তাহ থাকার পর সিজারের মাধ্যমে পৃথিবীর আলো দেখেন। জন্মের সময় মেয়েটির ওজন ছিল প্রায় আড়াই কেজির মত।

এই বিষয়ে এই চিকিৎসা দলের প্রধান ব্রাজিলের সাও পাউলো বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের ডাক্তার ডানি এজযেনবের্গ বলেন, এই প্রতিস্থাপন দ্বারা বোঝা যায় যে এই চিকিৎসা বিজ্ঞানে এই কৌশলটি সম্ভবপর এবং এর দ্বারা একটি বড় সংখ্যার সম্ভাব্য দাতাদের কাছ থেকে বন্ধাত্ব নারীরা জরায়ু নিতে পারবেন।

বর্তমানে জরায়ু প্রতিস্থাপনের যে পদ্ধতিটি রয়েছে সেখানে শুধু একজন জীবিত মানুষের কাছ থেকেই শুধু জরায়ু নেয়া যায়। এই বিষয়ে এজযেনবের্গ বলেন, মৃত্যুর পর জরায়ু দিতে আগ্রহী এবং এ নিয়ে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ মানুষের সংখ্যা জীবিত দাতাদের তুলনায় অনেক। এটি একটি বৃহত্তর জরায়ু দাতা পাওয়ার সম্ভাবনাকে আরো বাড়িয়ে দিচ্ছে। তবে এজযেনবের্গ জানায়, মৃত এবং জীবিত নারীদের জরায়ু প্রতিস্থাপনের পর জন্ম নেয়ার শিশুর মধ্যে কোন পার্থক্য আছে কিনা তা এখনো দেখা হয়নি।

শিক্ষা বার্তা-আ.আ.হ/মৃধা

একই ধরনের আরও সংবাদ