অধিকার ও সত্যের পক্ষে

তাবলিগে দ্বন্ধ: নেপথ্যে কারা?

 নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

তাবলীগ জামাতের দ্বন্দ্ব নিয়ে সারা দেশে তোলপাড় চলছে। কেন এই অবস্থা, এর নেপথ্যে কারা কাজ করছে এনিয়ে চলছে নানান ধরনের হিসাব-নিকাশ। এবার তাবলিগ জামাত নিয়ে সৃষ্ট বিরোধ নিরসনে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে এক বৈঠক হয়েছে। এ বৈঠকে সভাপতিত্ব করছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

বৈঠকে পুলিশের মহাপরিদর্শক মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ, ঢাকা মেট্টোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া, ধর্মমন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের প্রতিনিধি, আইজিপিসহ তাবলিগের মুরুব্বীরা উপস্থিত আছেন।

প্রসঙ্গত টঙ্গিতে বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে তাবলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে দেড় শতাধিক আহত হয়েছে। হামলা সংঘর্ষে মুন্সিগঞ্জের ইসমাইল মন্ডল (৭০) মারা গেছেন বলে এক পক্ষ দাবি করেছে। তবে তার লাশ কোথায় আছে এ বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

সকাল থেকে ইজতেমা ময়দান দখলে নিতে মাওলানা সাদপন্থিরা ইজতেমা ময়দানের আশপাশে অবস্থান নেয়। তারা এক পর্যায়ে মাওলানা জুবায়েরপন্থিদের ওপর হামলা করে। হামলার সময় ইজতেমার স্থায়ী প্যান্ডেলে অনেকে ঘুমিয়ে ছিলেন।

সংঘর্ষ শুরু হলে থেমে থেকে তা দুপুর পর্যন্ত চলে। লাঠিসোটা নিয়ে সাদপন্থিরা হামলা করলে জুবায়ের পন্থিরা ইটসুরকি দিয়ে ঢিল ছুড়ে তাদের প্রতিহত করার চেষ্টা করে।

হামলা সংঘর্ষের ঘটনায় বিমানবন্দর এলাকায় অবস্থান নিয়ে মাদ্রাসা শিক্ষক ও ছাত্ররা যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। এতে সড়কের একপাশে যান চলাচল বন্ধ থাকায় সকাল থেকে তীব্র যানজট দেখা দিয়েছে পুরো এলাকায়। সংঘর্ষে অন্তত দেড় শতাধিক আহত হয়েছেন।

তাদের মধ্যে শতাধিক মুসল্লিকে ভর্তি করা হয়েছে টঙ্গি হাসপাতালে। বাকিদের ঢাকা মেডিকেলসহ বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। দুপুরের পর আইন শৃঙ্খলা বাহিনী মাঠে প্রবেশ করে দুই পক্ষকেই মাঠ থেকে সরিয়ে দিতে শুরু করে। ঢাকা মহানগর পুলিশের ট্রাফিক উত্তরা বিভাগের উপ-কমিশনার প্রবীর কুমার দাশ জানান, আজ ভোর থেকেই আশকোনা এলাকায় মারমুখী অবস্থান নেয় তাবলিগ জামায়াতের দুই গ্রুপ। উত্তরার আবদুল্লাহ পুরে অবস্থান নিয়েছে আরেক পক্ষ।

সংঘর্ষের পর ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় সড়ক স্থবির হয়ে পড়েছে। তারা সড়কে অবস্থান নেয়ায় যান চলাচল বন্ধ রয়েছে

শিক্ষা বার্তা-আ.আ.হ/মৃধা

একই ধরনের আরও সংবাদ