অধিকার ও সত্যের পক্ষে

পৃথিবী তিন হুমকির মুখে : ড. ইউনূস

 নিজস্ব প্রতিনিধি।।

মানুষের সামনে তিনটি ভয়াবহ হুমকি অপেক্ষা করছে এমন সর্তকতা দিয়ে শান্তিতে নোবেলজয়ী প্রফেসর ড. মুহাম্মদ ইউনূস বলেছেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, পরিবেশ দূষণ আর সম্পদের বৈষম্য—এই তিন হুমকি প্রতিরোধ করতে না পারলে পৃথিবী থেকে মানুষ নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। গতকাল জার্মানির উল্ফসবার্গের অটোস্ট্যাডে নবম সোশ্যাল বিজনেস সামিটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এই তিন হুমকির কথা তুলে ধরেন প্রফেসর ইউনূস। সামাজিক ব্যবসার এই প্রবক্তা বলেন, সারা বিশ্বের ৯৯ শতাংশ সম্পদের মাত্র এক শতাংশ মানুষের হাতে। উল্টোদিকে ৯৯ শতাংশ মানুষের হাতে মাত্র এক শতাংশ সম্পদ।

এভাবে সম্পদ কেন্দ্রীভূত হতে থাকলে মানুষে মানুষে হিংসা ও বিদ্বেষ তৈরি হবে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে আর একটি হুমকি উল্লেখ করে ইউনূস বলেন, উন্নত বিশ্ব যেভাবে প্রযুক্তির দিকে ঝুঁকে পড়ছে, তাতে মানুষ কর্মহীন ও বেকার হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। যন্ত্রের ওপর নির্ভরশীলতা বাড়ালে একদিন এই যন্ত্র মানুষের ওপর খবরদারি করবে। তখন তারা মানুষকে অচল মনে করে ধ্বংস করে দিতে পারে। পরিবেশ দূষণকে আরেকটি বড় হুমকি উল্লেখ করে ড. ইউনূস বলেন, ‘যেভাবে উন্নত দেশগুলো কার্বন উৎপন্ন করছে, তাতে আর কয়েক দশকের মধ্যেই মাত্রা ২ ডিগ্রি তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এই তাপমাত্রা সহ্য করার ক্ষমতা পৃথিবীর নেই। এ কারণে আমাদের এখনই উদ্যোগ নিতে হবে পরিবেশ রক্ষায়।’ সবুজ উৎপাদনের দিকে ঝুঁকে পড়ার ওপর গুরুত্ব দিয়ে প্রফেসর ইউনূস বলেন, বাণিজ্যিক কোম্পানিগুলো শুধু তাদের উৎপাদনের দিকে নজর দিচ্ছে, বর্জ্য নিষ্কাশনে গুরুত্ব দিচ্ছে না। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন গাড়ি নির্মাতা কোম্পানি ভক্সওয়াগনের প্রধান নির্বাহী রোনাল্ড ক্রিসেন্ট, জার্মানির অর্থনৈতিক সহায়তা ও উন্নয়নবিষয়ক স্টেট সেক্রেটারি ডক্টর মারিয়া ফ্ল্যাক্স, ইউনুস সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক লামিয়া মোর্শেদ, মহাকাশচারী রন গারান, গ্রামীণ ক্রিয়েটিভ ল্যাবের হ্যান্স রিজ প্রমুখ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ‘আমি বাংলায় গান গাই’ গানটি গেয়ে শোনান প্রফেসর ইউনূসের মেয়ে মনিকা ইউনূস।

একই ধরনের আরও সংবাদ