অধিকার ও সত্যের পক্ষে

শিক্ষকের লালসার শিকার হয়ে গর্ভপাতে মৃত্যুশয্যায় ছাত্রী!

 নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

কুড়িগ্রাম জেলার নাগেশ্বরী উপজেলায় এক মাদ্রাসা শিক্ষকের লালসার শিকার হয়ে গর্ভপাত করে এখন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে এক ছাত্রী। উপজেলার শাহিবাজার বালিকা বিদ্যালয়ের ওই ছাত্রী বলদিয়া হায়দাড়িয়া মাদ্রাসার শিক্ষক মাইদুল ইসলাম লাভলুর লালসার শিকার হয়েছে। এ ঘটনার পর অভিযুক্ত ওই শিক্ষক এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে বলে জানা গেছে।

অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের নাম মাইদুল ইসলাম লাভলু। গত ৭ মাস আগে বাড়িতে একা পেয়ে ছাত্রীটিকে ধর্ষণ করে ওই শিক্ষক। এ ঘটনা প্রকাশ না করার জন্য মেয়েটিকে ভয়ভীতিও দেখায় লাভলু।

পরে ৬ মাস পর ধর্ষণের বিষয়টি স্বজনদের জানায় ছাত্রীটি। পরে মেয়েটির পরিবার এ বিষয়টি অভিযুক্ত শিক্ষককে জানালে এ ঘটনা প্রকাশ না করে গর্ভপাতের জন্য চাপ প্রয়োগ করে লাভলু।

এরপর সোমবার (৮ অক্টোবর) রাতে ওই ছাত্রীকে গোপনে চিকিৎসক শহিদুল ইসলামের বাড়িতে গর্ভপাতের জন্য পাঠায়। গর্ভপাতের পর মেয়েটির শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়। আর পানিতে ফেলে দেয়া হয় নবজাতকটিকে।

পরে নবজাতকের লাশ জলাশয়ে ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। এ ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে অভিযুক্ত শিক্ষক লাভলু।

এ ব্যাপারে ওই মাদ্রাসার সুপারিনটেনডেন্ট মতিয়ার রহমান জানান, ঘটনা প্রকাশের পর থেকেই শিক্ষক মাইদুল ইসলাম লাভলু আর মাদ্রাসায় আসছেন না।

একই ধরনের আরও সংবাদ