অধিকার ও সত্যের পক্ষে

কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের পর ভিডিও ধারণ, শ্রমিক লীগ নেতা গ্রেফতার

 নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

বগুড়ায় এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের পর ভিডিও ধারণকারি যুব শ্রমিকলীগ নেতা শাহিনুর রহমানকে গ্রেফতারের করেছে ডিবি পুলিশ। জেলা ডিবি পুলিশ বলছে, বগুড়ার শাজাহানপুর থানায় কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় শাহিনুরকে গ্রেফতার করার পর জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃত পরিবহন ব্যবসায়ী শাহিনুর রহমান (৪৫) বগুড়া জেলা যুব শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক ও বগুড়া শহরের কাটনারপাড়া এলাকার মৃত ওয়াজেদ আলীর পুত্র। সে বগুড়া-ময়মনসিংহ ও বগুড়া-রাজশাহীসহ বিভিন্ন রুটে চলাচলকারি ঝটিকা পরিবহনের মালিক। ঝটিকা বাসের নামঅনুসারে সে বগুড়ায় ঝটিকা শাহীন নামে পরিচিত।

বগুড়ার শাজাহানপুর থানা পুলিশ জানায়, গত ২৯ সেপ্টেম্বর কলেজ ছাত্রীর সঙ্গে শাহিনের পরিচয় করিয়ে দেয় তা এক বন্ধু। এরপর শাহিন নিজের জীপ গাড়ীতে তুলে সেই ছাত্রীকে ফুলতলা এলাকার সিয়েস্তা হোটেলে নিয়ে যায়। হোটেলের ছাদে নেশা জাতীয় কিছু খাইয়ে একটি রুমে নিয়ে টাকে ধর্ষণ করে শাহীন। ধর্ষণ ঘটনা ফাঁস না করতে হুমকি দেয় এবং মোবাইল ফোনে ধর্ষণের ঘটনা ভিডিও ধারণ করে। কৌশলে মেয়েটি হোটেল থেকে পালিয়ে শাজাহানপুর থানায় ধর্ষণ মামলা করে। এ মামলা তদন্তের দায়িত্ব পেয়ে বগুড়া ডিবি পুলিশ শাহীনকে রাতেই বগুড়া শহরের চারমাথা থেকে গ্রেফতার করে।

বগুড়া ডিবি পুলিশের ওসি নূরে আলম সিদ্দিকী জানান, ৩ অক্টোবর রাতে বগুড়ার শাজাহানপুর থানায় সিরাজগঞ্জ জেলার কাজিপুর সরকারী এম মনসুর আলী কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের সম্মান শেষ বর্ষের এক ছাত্রী (২৪) গ্রেফতারকৃত শাহিনুর রহমানের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করে। সেই মামলার প্রেক্ষিতে রাতেই শহরের চারমাথা এলাকা থেকে শাহিনুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়। ৪ অক্টোবর তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

বগুড়ার শাজাহানপুর থানার ওসি জিয়া লতিফুল ইসলাম জানান, কলেজ ছাত্রীর দায়ের করা মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, আসামি শাহিনুর রহমান তার পূর্ব পরিচিত। গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে তাকে প্রলোভন দিয়ে শহরের ফুলতলা এলাকার সিয়েস্তা নামের একটি অভিজাত হোটেলে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে।

একই ধরনের আরও সংবাদ