অধিকার ও সত্যের পক্ষে

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রসেসর সমৃদ্ধ ‘হ্যালিও এস৬০’

বাংলাদেশের বাজারে হ্যালিও সিরিজের নতুন মডেল উন্মোচন করলো এডিসন গ্রুপ। হ্যালিও এস৬০ নামের এই নতুন মডেলটি এখনকার সবচাইতে বড় আকর্ষণ এআই বা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এবং ফুল ভিউ নচ ডিসপ্লে। ২৫ হাজার ৯৯০ টাকার এই ফোনটির পারফরম্যান্স দেখে আসা যাক।

ডিজাইনঃ প্রথমত ডিজাইন এবংবিল্ড কোয়ালিটি। সামনে নচ, কিছুটা বেজেল এবংচিন। সাইড পোর্শন এ্যালুমিনিয়াম এবংব্যাকবডি গ্লাস। বাটন পজিশন থেকে ফিংগারপ্রিন্ট বেশ ইজি এক্সেসিবল এবংবেশ ফাস্ট। এর হাইব্রিড সিমস্লটে হয় দুই সিম নাহলে এক সিম এক মেমরি কার্ড ব্যবহারের সুযোগ থাকছে।

তবে ভেজাল হচ্ছে নেই ৩.৫mm ইয়ারফোন জ্যাক স্লট। বক্সে এডাপ্টার থাকলেও যাদের ইয়ারফোন ইউজিং বেশি হয় তারা ব্যাপারটা মাথায় রাখবেন।সাদামাটা লুকস, ভারি এ্যাপিয়ারেন্স এবংশক্তপোক্ত বিল্ড নিয়ে বাহিরের দিকে এই ডিভাইস ঠিকঠাকই আছে।

ডিসপ্লেঃ ৬.২ ইঞ্চ আইপিএস ডিসপ্লে প্যানেল যার এস্পেক্ট রেশিও ১৯:৯ এবং ডিসপ্লে রেজুলেশন ফুলএইচডি+ ডিসপ্লে পিপিয়াই ৪০২। সহজ ভাষায় বেশ নিউট্রাল, স্ট্যান্ডার্ড এবং শার্প একটি ডিসপ্লে এটি। কিছুটা চওড়া সাইজ এর ডিসপ্লেতে প্রোটেকশন দিচ্ছে কর্নিং গরিলা গ্লাস ৩। বেশ আগের মডেল । তবুও ডিসপ্লে কোয়ালিটি নিয়ে কোনো কমপ্লেইন থাকছেনা একদম ঠিকঠাক।

অপারেটিং সিস্টেমঃ এ্যান্ড্রয়েড ওরিও ৮.১ অপারেটিং সিস্টেম। ওভারঅল সফটওয়ার এক্সপেরিয়েন্স বেশ ভালো ছিলো। হ্যালিওর নিজস্ব প্যাশন ইউ আই এবং হেভি কাস্টমাইজড রম স্মার্টফোনটির। সফটওয়্যার বাগ পাওয়া যায়নি তাই অনর্গল ব্যাবহার করা গেছে।

হার্ডওয়্যারঃ হ্যালিও এস৬০ তে আছে ৪জিবি ডিডিআর ফোর র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি রম। চিপসেট হিসেবে আছে মিডিয়াটেক হেলিও পি৬০। আকর্ষনীয় ব্যাপার এতে হার্ডওয়ার বেইজড থ্রি ডি ফেস আনলক আছে । একটু অবাক করা ব্যাপারই বলতে হবে কারন খুবই কম ডিভাইসে হার্ডওয়ার বেইজড ফেস আনলক আছে।তাছাড়াও আর্টিফিসিয়াল ইন্টেলিজেন্স চিপসেট থাকার কারণে ব্যাটারি লাইফ টাও হবে মনের মতো।

পারফরম্যান্সঃ অন দ্যা রিয়াল লাইফ এক্সপেরিয়েন্স কোনো ল্যাগ হ্যাং পাওয়া যায়নি । গেমিং নিয়ে বললে গ্রাফিক্স বেশ চোখ ধাধানো ছিলো । গেমপ্লেতে কোনো কড়া ল্যাগ পাওয়া যায়নি। টানা গেম খেলেও হিটআপের লক্ষন পাওয়া যায়নি। কিন্তু এর জন্য নেটওয়ার্ক ভালো হতে হবে। মানে হচ্ছে নেটওয়ার্ক আপডাউন করে এমন কোথাও নরমালি ফোন গরম হবেই আর তখন গেম খেললে বা হেভি ইউজ করলে যে কোন স্মার্টফোনই এক্সেসিভ হিট হবে।

ক্যামেরাঃ পিছনে১৬মেগাপিক্সেলেরপ্রাইমারিরেগুলারসেন্সর এবংসেকেন্ডারিতে ৫ মেগাপিক্সেল এর ডেপথ সেন্সিং সেন্সর । রিয়ার ক্যাম ডে লাইটে বেশ সুন্দর ছবি তুলে । শাটার স্পিড এবংফোকাস এ্যাকুরেট । আর রিয়ার ক্যামেরা।

দিয়ে বোকেহ মোডে ছবি ভালোই হয় যদিও ডিএসএলআর মতো না তারপরও বলা যায় কার্যক্ষমতা কাছাকছি পর্যায়ের। এছাড়াও রিয়ার ক্যামেরা দিয়ে 4K ভিডিও করার অপশন আছে।

আছে ১৬ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা । ফ্রন্ট ক্যামেরাটি আসলেই অসাধারণ । শার্প এবংওয়েল ডিটেইল ছবি পাওয়া যায় । ক্যামেরা ফিচারস এর মধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য ফিচার গুলো হলো বোকেহ মোড, নাইট মোড, ফেস বিউটি, প্যানোরমা মোড, প্রো মোড, অটো সিন, গ্রুপ সেলফি, টাইম লেপস, ব্যাকলাইট এবং ফ্রন্ট মিরর।

ব্যাটারীঃ ৩০০০ এমএএইচ এর লিথিয়াম পলিমার ব্যাটারী দেখে একটু বিরক্তি লাগছিলো কিন্তু ব্যাবহার করত গিয়ে দেখলাম ব্যাটারী টি আসলেই একটি জিনিস। অনেক হেভী ইউজ করেও সারাদিনে ব্যাটারীর চার্জ শেষ করতে পারিনি। তার ওপর ব্যাটারী ফিচারস এ নরমাল মোড, পাওয়ার সেভিং মোড এবং এক্সট্রিম পাওয়ার সেভিং মোড। নরমাল মোডেই আমি সারাদিন হেভি ইউজ করে চার্জ শেষ করতে পারিনি পাওয়ার সেভিং মোড বা এক্সট্রিম পাওয়ায় সেভিং এ আশা করতে পারি দুইদিন ভালো মতো ব্যাবহার করা যাবে।ওভারঅল ব্যাটারী পার্ফরম্যান্স নিয়ে আর কোন বিরক্তি ছিলো না। টাইপ সি চার্জিং পোর্ট ছাড়াও হ্যালিও এস৬০ এর বক্সের ভেতরেই পাওয়া যাবে ওয়্যারলেস চার্জার।

একই ধরনের আরও সংবাদ