অধিকার ও সত্যের পক্ষে

কম্পিউটার কথন

 ফাতিমা হাসিঃ

মি কম্পিউটার। আমার অন্য আরেকটি নাম গণনাকারী যন্ত্র। কম্পিউটার শব্দটি গ্রিক কম্পিউট(compute) শব্দ থেকে এসেছে। গণকযন্ত্র বা কম্পিউটার হল এমন একটি যন্ত্র যা সুনির্দিষ্ট নির্দেশ অনুসরণ করে গাণিতিক গণনা সংক্রান্ত কাজ খুব দ্রুত করতে পারে। বর্তমানে আমাকে শুধু গননাকারী যন্ত্র বলা যাবে না,কেননা আমি সকল তথ্য গ্রহণ, সংগ্রহ করে রাখতে পারি এবং পরবর্তীতে প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যাবহার করতে পারি। আমাকে উদ্ভাবনে অনেক বিজ্ঞানীদের উল্লেখযোগ্য ভুমিকা রয়েছে।তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো চার্লস ব্যাবেজ। চার্লস ব্যাবেজ কে আধুনিক কম্পিউটার এর জনক বলা হয়।

আমি বাংলাদেশে এসেছি ১৯৬৪ সালে। পৃথিবীর প্রথম প্রজন্মে আমার নাম ছিলো এনিয়াক *অ্যাবাকাস*। কম্পিউটার বিজ্ঞানের সত্যিকার সূচনা হয় অ্যালান টুরিং এর প্রথমে তাত্ত্বিক ও পরে ব্যবহারিক গবেষণার মাধ্যমে। বিশ শতকের মধ্যভাগ থেকে আধুনিক কম্পিউটারের বিকাশ ঘটতে শুরু করে। ১৯৭১ সালে মাইক্রোপ্রসেসর উদ্ভাবনের ফলে মাইক্রোকম্পিউটারের দ্রুত বিকাশ ঘটতে থাকে। বাজারে প্রচলিত হয় বিভিন্ন প্রকৃতি ও আকারের কম মূল্যের অনেক রকম পার্সোনাল কম্পিউটার (Personal Computer) বা পিসি (PC)। সে সঙ্গে উদ্ভাবিত হয়েছে অনেক রকম অপারেটিং সিস্টেম, প্রোগ্রামের ভাষা।

প্রোগ্রামিং এর জনক হলেন কবি লর্ড বাইরনের কন্যা এডা লাভলেস। অগণিত ব্যবহারিক প্যাকেজ প্রোগ্রাম এরসাথে ব্যাপক বিস্তৃতি ঘটেছে কম্পিউটার নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেটের এবং সংশ্লিষ্ট সেবা ও পরিসেবার। কম্পিউটার শিক্ষা প্রদানের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত ও সম্প্রসারিত হয়েছে অসংখ্য প্রাতিষ্ঠানিক ও অপ্রাতিষ্ঠানিক কম্পিউটার শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান।

সাম্প্রতিক কালে আমি ও তথ্য প্রযুক্তি (Information Technology) বা আইটি (IT) ব্যবসা-বাণিজ্যের বিরাট অংশ দখল করে রেখেছি।কর্মসংস্থান হয়ে পড়েছে অনেকাংশেই আমার উপর নির্ভরশীল। আমাকে ছাড়া বর্তমান সমাজ তাদের অস্তিত্ব কল্পনাই করতে পারে না। যুগের পর যুগ আমি নতুন ভাবে মানুষের কল্যাণ এর জন্য কাজ করে যাবো।

কম্পিউটার কথন আজকের মতো এখানেই শেষ।

 

লেখকঃ ফাতিমা হাসি

একই ধরনের আরও সংবাদ