অধিকার ও সত্যের পক্ষে

এইচএসসির ফল ও শিক্ষার মান

 কে.এম আমিনুল ইসলামঃ

 চলতি বছরের উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার প্রকাশ করা ফলাফলে দেখা যায় এবার পাস করেছে ৬৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ শিক্ষার্থী। গত বছর পাসের হার ছিল ৬৮ দশমিক ৯১ শতাংশ। ফলে এবার ২ দশমিক ২৭ শতাংশ পাসের হার কমেছে এবং এবার ৫৭ হাজার ৯০ জন কম পাস করেছে। এবার মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৯ হাজার ২৬২। গতবার জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৩৭ হাজার ৯৬৯ জন। কমেছে আট হাজার ৭০৭ জন।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এইচএসসি ও সমমানের ফল হস্তান্তর করেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। পরে পরীক্ষার ফলাফল তুলে ধরা হয়। এবার মাদ্রাসা, কারিগরিসহ ১০টি শিক্ষা বোর্ডে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এরমধ্যে আট লাখ ৫৮ হাজার ৮০১ শিক্ষার্থী পাস করেছে।

 শিক্ষাকে কিছুসংখ্যক লোকের অনৈতিক বাণিজ্যের ধারা থেকে বের করে আনতে মানসম্পন্ন শিক্ষক নিয়োগ, শ্রেণিকক্ষে পাঠদানে শিক্ষকদের পূর্ণ প্রস্তুতি ও মনোযোগ দিতে হবে। বিশ্বের কোথাও মূলধারার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি এ ধরনের কোচিং ও প্রাইভেট টিউশনির রমরমা ব্যবসা নেই। বর্তমান বাস্তবতায় কোচিং ব্যবসা বন্ধের পাশাপাশি শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার মানোন্নয়নে দ্রুত ও কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে 

সময়মত ফল প্রকাশ হওয়া এখন প্রায় নিয়মিত ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটা আশাবাদের কথা। পাস করা শিক্ষার্থীরা যাতে উচ্চ শিক্ষার সুযোগ পায় সেটি নিশ্চিত করতে হবে। এই ফলাফল ধরে রেখে ভবিষ্যতে শতভাগ পাসের লক্ষ্যে এগিয়ে যেতে হবে। এ জন্য বেশকিছু পদক্ষেপ নিতে হবে। এরমধ্যে রয়েছে- শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক এবং ছাত্রের একটি বাস্তবসম্মত অনুপাত রক্ষা। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বৈষম্য এবং অসুস্থ প্রতিযোগিতা ও দুর্নীতি বন্ধ করতে হলে কোচিং ব্যবসা এবং শিক্ষকদের প্রাইভেট টিউশনি বন্ধ করা।

শিক্ষাকে কিছুসংখ্যক লোকের অনৈতিক বাণিজ্যের ধারা থেকে বের করে আনতে মানসম্পন্ন শিক্ষক নিয়োগ, শ্রেণিকক্ষে পাঠদানে শিক্ষকদের পূর্ণ প্রস্তুতি ও মনোযোগ দিতে হবে। বিশ্বের কোথাও মূলধারার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি এ ধরনের কোচিং ও প্রাইভেট টিউশনির রমরমা ব্যবসা নেই। বর্তমান বাস্তবতায় কোচিং ব্যবসা বন্ধের পাশাপাশি শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার মানোন্নয়নে দ্রুত ও কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে।

এছাড়া বর্তমানে জঙ্গিবাদের চরম উত্থানের সময়ে শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে নতুন করে ভাবতে হবে। পাঠ্যসূচিতে এমন বিষয় নিয়ে আসতে হবে যাতে ধর্মান্ধতা, কুসংস্কার হতে দূরে থাকতে পারে শিক্ষার্থীরা। পাশাপাশি প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংস্কৃতি চর্চা বাড়াতে হবে। দেশপ্রেমে উদ্ধুদ্ধ করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় গড়ে তুলতে হবে শিক্ষার্থীদের। একসাগর রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামের সঠিক ইতিহাস থেকে পাঠ নিতে হবে যাতে দেশ ও দেশের মানুষের প্রতি দায়বোধ সৃষ্টি হয় শিক্ষার্থীদের।

প্রযুক্তির চরম উৎকর্ষের এই যুগে শিক্ষার্থীরা আধুনিক, বিজ্ঞানমনস্ক হয়ে গড়ে উঠুক- আমাদের শিক্ষার লক্ষ্য হোক সেই দিকে। মনে রাখা প্রয়োজন এ ব্যাপারে শিক্ষকের ভূমিকাই কিন্তু মুখ্য। সংশ্লিষ্টরা এ বিষয়ে মনোযোগী হলে শিক্ষার আমূল পরিবর্তন কোনো কঠিন কাজ হবে না। সকল শিক্ষার্থীর প্রতি রইলো আমাদের শুভকামনা।

 

লেখকঃ কে.এম আমিনুল ইসলাম ।

একই ধরনের আরও সংবাদ