অধিকার ও সত্যের পক্ষে

রাজাপুরে নানা সংকটে জরজরিত মডেল প্রাথমিক স্কুল পাঠদান ব্যাহত

 মোঃ আমিনুল ইসলাম

ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলা সদরের ৩০ নং মডেল রাজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেনীকক্ষ, বেঞ্চ ও শিক্ষক সংকটসহ নানা সমস্যায় জরজরিত। এসব সমস্যার কারনে সনামধন্য এ বিদ্যাপীঠে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে।

তথ্যমতে, টিনসেড পাঠাগার, শ্রেনীকক্ষ সংস্কার, বেঞ্চ নির্মান প্রয়োজন। বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশের দেয়াল না থাকায় শিশুদের নিয়ে ঝুকিতে রয়েছে। বিদ্যালয়ের ২০ জন শিক্ষকের মধ্যে তিন শিক্ষক পদোন্নতী পেয়ে প্রধান শিক্ষক হয়ে ০১ জুলাই থেকে অন্যত্র চলে যাওয়া, একজন মাতৃকালীন ও একজন অর্জিত ছুটিতে থাকায় বিদ্যালয়ের পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে।

৩০ নং মডেল রাজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহামুদা খানম বলেন, টিনসেড পাঠাগার ও শ্রেনীকক্ষটি জরুরি ভিত্তিতে সংস্কার ও বেঞ্চ প্রয়োজন। বিদ্যালয়ে বর্তমানে ৮শ’ শিক্ষার্থী লেখাপড়া করছে। কক্ষ সংকট থাকায় শিশুদের টিনসেড পাঠাগারটিও শ্রেনী কক্ষ হিসাবে ব্যবহার করা হচ্ছে। কিন্তু টিন নষ্ট হয়ে যাওয়ায় বৃষ্টির পানি ভিতরে পরায় শিশুদের বসতে কষ্ট হচ্ছে। অনেক গুলো বেঞ্চ ভেঙে যাওয়ায় সেগুলো সংস্কারসহ বারতি বেঞ্চের প্রয়োজন।

বর্তমানে চলমান কাজের জন্য কমপক্ষে ৫০ হাজার টাকার প্রয়োজন। উপজেলার দু’ একটি দপ্তরে সমস্যার কথা বললেও তাদের কাছ থেকে কোন সাড়া পাওয়া যায়নি। বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশের দেয়াল না থাকায় শিশুদের নিয়ে ঝুকি রয়েছে। ব্যাক্তিগত টাকা দিয়ে টিনের বেড়া দেয়া হলেও সেটা খুব নিরাপদ নয়। দ্রæত দেয়ালটি নির্মানের প্রয়োজন। ষ্টিমিটের আগে দেয়াল নির্মানের ব্যায়ের পরিমান বলা যাচ্ছে না।

এছাড়া ইতো মধ্যে বিদ্যালয়ের ৩ শিক্ষক পদোন্নতী পেয়ে প্রধান শিক্ষক হয়ে ০১ জুলাই থেকে অন্যত্র চলে গেছে এবং একজন মাতৃকালীন ও একজন অর্জিত ছুটি নিয়েছে। বর্তমানে ৫ জন শিক্ষক না থাকায় বিদ্যালয়ের পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। তাই বিদ্যালয়ে শিক্ষক প্রয়োজন।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা খান মোঃ আলমগীর বলেন, আর্থিক বিষয়ে আমাদের কিছু করার নেই। উপজেলা পরিষদ বা ইউনিয়ন পরিষদ চাইলে আর্থিক সহযোগিতা করতে পারেন। শিক্ষক সংকট দুর করতে ডেপুটিশনে শিক্ষক দেয়ার ব্যাবস্থা করছি কিন্তু জরুরী ভিত্তিতে নিয়োগের কোন সুযোগ নেই।

একই ধরনের আরও সংবাদ