অধিকার ও সত্যের পথে

আন্দোলনকারী শিক্ষকদের সঙ্গে সচিবের বৈঠক

 শিক্ষাবার্তা বিশেষ সংবাদদাতাঃ

স্বীকৃতি পাওয়া দেশের সব বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার দাবিতে আমরণ অনশনের পাশাপাশি রোববার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইনের সঙ্গে বৈঠক করেছেন আন্দোলনরত শিক্ষক-কর্মচারীরা। সব প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির জন্য তাঁরা সচিবকে দুটি প্রস্তাব ও পুরো নীতিমালার আলোকে এমপিওভুক্তির দাবি জানিয়েছেন।

দুটি প্রস্তাবে রয়েছে বরাদ্দ করা টাকা কম হলে সব প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আওতায় এনে এবার আংশিক বেতন চালু করে পরবর্তী অর্থবছরে তা সমন্বয় করা এবং প্রতিষ্ঠানগুলোর সক্ষমতা যাচাইয়ের জন্য এমপিওভুক্তির পর তিন বছর সময় দেওয়া। এর আগে এই প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বরাবরও দিয়েছিলেন শিক্ষকেরা।

আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়া নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক বিনয় ভূষণ রায় জানান। তিনি বলেন, শফিকুল ইসলাম ও আনোয়ার হোসেন নামে দুই সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল রোববার বিকেলে সচিবের সঙ্গে বৈঠক করেন। সচিব প্রস্তাবগুলো প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানোর কথা জানিয়েছেন। আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের সঙ্গেও আজ রাতে বৈঠকের চেষ্টা হচ্ছে বলে জানান তিনি।
তবে দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত কর্মসূচি চলবে বলে জানিয়েছেন বিনয় ভূষণ রায়।

বেঁধে দেওয়া সময়ের মধ্যে দাবি পূরণ না হওয়ায় গত ২৫ জুন থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের সড়কের উত্তর পাশে তাঁরা আমরণ অনশন শুরু করেন। আজ ছিল আমরণ অনশনের ১৪তম দিন। এর আগে একই দাবিতে গত ১০ জুন থেকে তাঁরা লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি পালন করে আসছিলেন।

সর্বশেষ ২০১০ সালে ১ হাজার ৬২৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত (মাসে বেতন-ভাতা বাবদ সরকারি অংশ দেওয়া) করা হয়েছিল। বর্তমানে স্বীকৃতি পাওয়া নন-এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আছে ৫ হাজার ২৪২টি। এগুলোতে শিক্ষক-কর্মচারী ৭৫ থেকে ৮০ হাজার।

একই ধরনের আরও সংবাদ