অধিকার ও সত্যের পথে

বেসরকারি শিক্ষক বান্ধব বাজেট হোক

 এ এইচ এম সায়েদুজ্জামান।।

 শিক্ষা নিয়ে Nelson Mandela উক্তি- Education is the most powerful weapon which you can use to change the world. শিক্ষা একটি দেশ ও জাতির উন্নয়নের প্রধান সিঁড়ি, যা ছাড়া দেশটির উন্নতি সম্ভব নয়। সামাজিক, অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তিগত প্রতিটি ক্ষেত্রেই উন্নতির প্রধান হাতিয়ার হল শিক্ষা। দেশের জনশক্তিকে সৎ, যোগ্য, দক্ষ ও দেশপ্রেমিক হিসেবে গড়ে তুলতে শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা অপরিমেয়। তাই আধুনিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় শিক্ষাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হয় এবং জাতীয় বাজেটে শিক্ষার জন্য রাখা হয় পর্যাপ্ত বরাদ্দ।

আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে আদর্শ হিসেবে একটি দেশের শিক্ষা খাতে মোট জাতীয় আয়ের ৬ শতাংশ বা বাজেটের ২০ শতাংশ বরাদ্দ ধরা হয় বাস্তবতা বলে বর্তমানে বাংলাদেশে শিক্ষা খাতে বরাদ্দ জাতীয় আয়ের ২ শতাংশের সামান্য বেশি, অর্থাৎ বাজেটের ১১ শতাংশের সামান্য বেশি। আফ্রিকার তানজানিয়ায় মোট বাজেটের ২৬ শতাংশ, লেসোথোয় ২৪ শতাংশ, বুরুন্ডিতে ২২, টোগোয় ১৭ ও উগান্ডায় ১৬ শতাংশ। দেশের জনশক্তিকে সৎ, যোগ্য, দক্ষ আদর্শিক ও দেশপ্রেমিক হিসেবে গড়ে তুলতে শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। তাই আধুনিক রাষ্ট্রব্যবস্থায় শিক্ষাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হয় এবং জাতীয় বাজেটে শিক্ষার জন্য রাখা হয় পর্যাপ্ত বরাদ্দ।

কিন্তু কোন অদৃশ্য শক্তির কারনে এর ব্যত্যয় ঘটে। দেশে প্রায় ৫ লক্ষ বেসরকারি শিক্ষক আছে এই বিশাল জনগোষ্ঠী দেশে শিক্ষার মানোন্নয়ন এ নিয়োজিত। অথচ কি আজব এই শিক্ষকদের মানোন্নয়নে, দক্ষ শিক্ষক তৈরিতে সরকারের কার্যকরী পদক্ষেপ পরিলক্ষিত হয় না। শিক্ষিত জাতী গঠনে এই শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বাড়াতে আধুনিক কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে। তাদের প্রশিক্ষণ ও গবেষণায় উদ্বুদ্ধ করতে হবে। আর এসব কর্মসূচি বাস্তবায়নে বাজেটে পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ থাকতে হবে। এ বছরের বাজেট হোক বেসরকারি শিক্ষক বান্ধব বাজেট এই দাবী শিক্ষক ও শিক্ষার্থী সহ আপামর জনসাধারনের। বিষয়টি সরকারের নীতিনির্ধারণী মহল গুরুত্ব সহকারে নিবে এই প্রত্যাশায়।

লেখক-  শিক্ষক ও সাংবাদিক।

একই ধরনের আরও সংবাদ