অধিকার ও সত্যের পথে

একাদশে ভর্তির ১ম মেধাতালিকার ফল প্রকাশ!

 আল আমিন হোসেন মৃধা, জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ॥

একাদশ শ্রেণি ভর্তির জন্য আবেদনকারীদের প্রথম মেধার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে।

রোববার রাত ১২টা ১ মিনিটে এ ফল প্রকাশের কথা জানিয়েছে আন্তঃ শিক্ষাবোর্ড।

ভর্তির জন্য মনোনীত শিক্ষার্থীদের তালিকা তিন ধাপে প্রকাশ করা হবে। দ্বিতীয় ধাপের ফল ২১ জুন এবং তৃতীয় ধাপের ফল ২৫ জুন প্রকাশ করা হবে। আন্তঃ শিক্ষাবোর্ড সমন্বয়ক ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউর হক বলেন, বুয়েটের কারিগরি সহায়তায় ফলাফল প্রকাশ করা হবে। এবার ঝামেলা ছাড়াই এ ফল প্রকাশ করা যাবে।

জানা গেছে, ভর্তির আবেদনের সময় দেয়া মোবাইল নম্বরে এসএমসের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ফলাফল জানিয়ে দেয়া হবে। সেখানে একটি গোপনীয় পিন নম্বর প্রদান করা হবে। এই পিন নম্বরটি পরবর্তি ভর্তি নিশ্চয়নের জন্য সংরক্ষণ করতে হবে। এ ছাড়াও শিক্ষার্থীর এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার রোল নম্বর, বোর্ড, পাসের সন, রেজিস্ট্রেশন নম্বর ব্যবহার করে ভর্তির ওয়েবসাইট (www.xiclassadmission.gov.bd) থেকে বিস্তারিত ফলাফল পাওয়া যাবে। এ ছাড়া শিক্ষার্থীরা তাদের আবেদনকৃত কলেজের নোটিশ বোর্ডের ফলাফল দেখতে পারবেন।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ড কর্মকর্তারা জানান, প্রথম ধাপে মনোনিত শিক্ষার্থীরা আগামী ১১ থেকে ১৮ জুন পছন্দের কলেজে ভর্তি নিশ্চয়ন করতে হবে। অন্যথায়, তার আবেদন বাতিল হয়ে যাবে। দ্বিতীয় পর্যায়ে আবেদন করা যাবে ১৯ ও ২০ জুন।

প্রথম মেধা তালিকার মাইগ্রেশনের ফল প্রকাশ করা হবে ২১ জুন। একই দিনে দ্বিতীয় মেধার ফল প্রকাশ করা হবে এবং পরের দিন অর্থাৎ ২২ ও ২৩ জুন ভর্তির নিশ্চায়ন ও আবেদন বাতিল করা হবে। ২৪ জুন তৃতীয় পর্যায়ে আবেদন শুরু এবং পরের দিন ২৫ জুন দ্বিতীয় মেধার মাইগ্রেশনের ফল ও তৃতীয় মেধা তালিকার ফল প্রকাশ করা হবে। তৃতীয় মেধার শিক্ষার্থীদের নিশ্চায়ন করতে হবে ২৬ জুন।

তিন পর্যায়ের মনোনিত শিক্ষার্থীদের ভর্তি প্রক্রিয়া চলবে ২৭ থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত। আর ক্লাস শুরু ১ জুলাই থেকে। তবে বিলম্ব ফি দিয়ে ভর্তির সুযোগ থাকছে জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত। সে তারিখ পরবর্তীতে বোর্ড থেকে জানিয়ে দেয়া হবে। চলতি বছর বিভাগীয় এবং জেলা সদরের কলেজে ভর্তির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের শতভাগ আসন সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। ভর্তিতে মেধার ভিত্তিতে নির্বাচন করা হবে। মেধার ভিত্তিতে ভর্তির পরে যদি বিশেষ অগ্রাধিকার প্রাপ্ত কোনো আবেদনকারী থাকে তাহলে মোট আসনের অতিরিক্ত হিসেবে ভর্তি করান হবে।

ফলাফল প্রকাশ সময় যদি সমান জিপিএ প্রাপ্তদের ক্ষেত্রে সর্বমোট প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে মেধাক্রম নির্ধারণ করতে হবে। মাদরাসা, কারিগরি এবং বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়্র ক্ষেত্রে গ্রেড পয়েন্ট ও প্রাপ্ত নম্বর সমতুল্য করে হিসাব করতে হবে।

বিজ্ঞান গ্রুপে ভর্তির ক্ষেত্রে সমান মোট নম্বর প্রাপ্তদের মেধাক্রম নির্ধারণের ক্ষেত্রে সাধারণ গণিত, উচ্চতর গণিত/জীববিজ্ঞানে প্রাপ্ত জিপিএ বিবেচনায় আনা হবে। প্রার্থী বাছাইয়ে জটিলতা হলে পর্যায়ক্রমে ইংরেজি, পদার্থ ও রসায়নে প্রাপ্ত জিপিএ বিবেচনায় নেয়া হবে। মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা গ্রুপের ক্ষেত্রে সমান জিপিএ নিষ্পত্তির জন্য পর্যায়ক্রমে ইংরেজি, গণিত ও বাংলায় অর্জিত জিপিএ বিবেচনা করা হবে। এক বিভাগেরপ্রার্থী অন্য বিভাগে ভর্তির ক্ষেত্রে মোট গ্রেড পয়েন্ট একই হলে প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে মেধাক্রম নির্ধারণ করতে হবে। এক্ষেত্রে প্রার্থী বাছাইয়ে জটিলতা হলে পর্যায়ক্রমে ইংরেজি, গণিত ও বাংলায় অর্জিত নম্বর বিবেচনায় আনা হবে।

একই ধরনের আরও সংবাদ