অধিকার ও সত্যের পথে

স্কুলেই সংসার পেতেছেন শিক্ষক

 বিশেষ প্রতিনিধিঃ

নাটোরের বাগাতিপাড়ার বড়পুকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বারান্দায় আসবাব তৈরি করছে কাঠমিস্ত্রি মনে হতে পারে একটি একটি ফার্ণিচারের কারখান। একটি কক্ষে কাঠের আসবাব সাজানো। পাশের কক্ষেই রাখা আছে রড, সিমেন্ট। আরো দুটি কক্ষের মেঝেতে রাখা হয়েছে ধান এ অবস্থা দেখে মনে হতে পারে এটি স্কুল, না বাসা!!! এমনই অবস্থা বাগাতিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টির। জানা গেছে  স্কুলের সহকারী শিক্ষক আনোয়ারা পারভিন ওই কক্ষগুলো দখল করে রেখেছেন।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে দুই মাস ধরে স্কুলের চারটি কক্ষ ব্যবহার করছেন তিনি। এর মধ্যে দুটি কক্ষে চলছে ধান শুকানোর কাজ। একটি কক্ষে রাখা হয়েছে খাট, সোফাসেট, ওয়ার্ডরোবসহ কাঠের আরো আসবাব। আরেকটি কক্ষে রাখা হয়েছে পাইপ, রড, সিমেন্টসহ প্রয়োজনীয় আরো অনেক কিছু। কক্ষ চারটি ব্যবহারের কথা স্বীকার করে অভিযুক্ত শিক্ষক আনোয়ারা বলেন, তাঁর বাসায় কাজ চলছে। তাই তিনি স্কুল পরিচালনা কমিটিকে জানিয়ে কক্ষগুলো ব্যবহার করছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ফাইজুল ইসলাম এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, শিক্ষকদের ব্যক্তিগত কোনো কাজ স্কুলে করতে পারবেন না। যদি কোনো শিক্ষক এমন কিছু করে থাকেন তাহলে সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাসরিন বানু বলেন, স্কুলে কেন আসবাব রাখা হয়েছে সে বিষয়ে প্রধান শিক্ষক ও অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে অচীরেই কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানো হবে।

একই ধরনের আরও সংবাদ