অধিকার ও সত্যের পথে

পাবনায় শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অসদুপায়, অধ্যক্ষসহ আটক-১৭

 নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বন করা ও সহায়তার দায়ে পাবনায় কলেজ অধ্যক্ষ সহ ১৭ শিক্ষক-পরীক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার পরীক্ষা চলাকালে পাবনার কয়েকটি কেন্দ্র থেকে তাদের আটক করা হয়। পাবনা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনাররা তাদের আটক করেন।

এদের মধ্যে সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজ কেন্দ্র থেকে অধ্যক্ষ ও তিন শিক্ষকসহ ৮ জন, পাবনা জেলা স্কুল কেন্দ্র থেকে ২ জন, শহীদ ফজলুল হক উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে ২ জন, পাবনা ইসলামিয়া কলেজ কেন্দ্র থেকে ৩ জন ও পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট কেন্দ্র থেকে ২ জনকে আটক করা হয়।

আটকৃতরা হলেন- পাবনা সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজ কেন্দ্র থেকে কলেজ অধ্যক্ষ রেজাউল ইসলাম, কক্ষ প্রধান একই কলেজের রসায়ন বিভাগের প্রভাষক আব্দুল হক, সুজানগরের দুলাই ডিগ্রি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক শামীম হোসেন, আতাইকুলা আমেনা খাতুন ডিগ্রি কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক ইকবাল হোসেনকে আটক করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এছাড়া নকল করার দায়ে একই কলেজ কেন্দ্র থেকে আটক করা হয় চার পরীক্ষার্থীকে। তারা হলো-পাবনা সদর উপজেলার কোলাদী গ্রামের নাজির উদ্দিনের ছেলে নাজমুন সাকিন মুন, পাবনা পৌর সদরের গোবিন্দা এলাকার মৃত ফজলুল করিমের ছেলে মজদুল করিম, চাটমোহর উপজেলার হরিপুর গ্রামের খলিল উদ্দিনের মেয়ে আল্পনা খাতুন, আমিনপুর থানার আনোয়ার হোসেনের ছেলে রঞ্জু মিয়া।

পাবনা সদর থানায় ভারপাপ্ত কর্মকর্তা ওবায়দুল হক জানান, শনিবার ছিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগ পরীক্ষা। পাবনার বিভিন্ন কেন্দ্রে পরীক্ষাটি অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষা চলাকালে নকল করতে সহায়তা করার অভিযোগে পাবনা সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজের অধ্যক্ষ রেজাউল ইসলাম, তিন শিক্ষক ও চার পরীক্ষার্থীকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে আটক করে পুলিশ।

এছাড়া মোবাইল ডিভাইসসহ বিভিন্ন মাধ্যমে নকল করার দায়ে শহরের ৪টি কেন্দ্র থেকে আরো ৯ পরীক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। পরে আটককৃত পরীক্ষার্থীদের বিভিন্ন মেয়াদে জেল জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। চার শিক্ষককের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।

একই ধরনের আরও সংবাদ