অধিকার ও সত্যের পথে

রাজিবের হাত বিচ্ছিন্ন ও মৃত্যু মামলায় দুই চালকের জামিন নামঞ্জুর

 বিশেষ প্রতিনিধিঃ

সরকারি তিতুমীর কলেজের ছাত্র রাজীব হোসেনের হাত বিচ্ছিন্ন করা ও পরবর্তীতে তার মৃত্যু ঘটনার মামলায় গ্রেপ্তার দুই বাসচালকের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেছে মাননীয় আদালত। আজ রবিবার ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাজহারুল ইসলাম বিআরটিসি বাসের চালক ওয়াহিদ ও স্বজন পরিবহন বাসের চালক মো. খোরশেদের জামিন আবেদন শুনানি শেষে নামঞ্জুর করেন। এর আগেও বেশ কয়েকবার দুই আসামির জামিন নাকচ করেছে বিজ্ঞ আদালত।

গত ৩ এপ্রিল দুপুরে বিআরটিসির একটি দোতলা বাসের পেছনের ফটকে দাঁড়িয়ে যাচ্ছিলেন মহাখালীর সরকারি তিতুমীর কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র রাজীব হোসেন। বাসটি হোটেল সোনারগাঁওয়ের বিপরীতে পান্থকুঞ্জ পার্কের সামনে পৌঁছালে হঠাৎ পেছন থেকে স্বজন পরিবহনের বাসটি বিআরটিসি বাসটির গা ঘেঁষে অতিক্রম করে। দুই বাসের চাপে গাড়ির পেছনে দাঁড়িয়ে থাকা রাজীবের হাত শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। ওই ঘটনার পর পথচারীরা রাজীবকে পান্থপথের শমরিতা হাসপাতালে ভর্তি করেন। এরপর তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, রাজীবের ডান হাত কুনইয়ের ওপর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। তার মাথায়ও আঘাত লাগে। পরবর্তীতে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় গত ১৭ এপ্রিল তিনি মারা যান। তার মৃত্যুর পর এ সংক্রান্ত মামলাটি দুর্ঘটনাজনিত হত্যা মামলায় রূপ নেয়। ৪ এপ্রিল বিআরটিসি বাসের চালক ওয়াহিদ ও স্বজন পরিবহনের বাসের চালক মো. খোরশেদকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর থেকে তারা কারাগারে।

একই ধরনের আরও সংবাদ