অধিকার ও সত্যের পক্ষে

আবাসন সংকটের মধ্যেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে ছাত্রনেতাদের বিলাসী জীবন

 ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিঃ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে তীব্র আবাসন সংকট তা সত্বেও কোনো কোনো হলে ছাত্রনেতারা রাজকীয় জীবন-যাপন করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। হলের ছোট্ট কক্ষে গাদাগাদি করে কোনোরকমে দিন যাপন করেন শিক্ষার্থীরা। কেউ আবার শোবার জায়গাটুকুও না পেয়ে ঘুমান মসজিদের ফ্লোরে, রিডিং রুমের চেয়ারে এবং হলের ছাদে।

জানা গেছে,একাধিক ছাতের জন্য কক্ষ বরাদ্দ হলেও অনেক নেতা এসব কক্ষে একাই থাকেন। কারো কারো কক্ষে রয়েছে খাট, ফ্রিজ, টিভিসহ অ্যাকুরিয়াম। বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজী মুহম্মদ মুহসীন হলে এমন কয়েকটি কক্ষের সন্ধান পাওয়া গেছে।

হলের ৫১৫ নম্বর কক্ষে থাকেন ইমরান হোসেন ইমু। তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য বলে পরিচয় দেন। হলের কক্ষে ফ্রিজ রাখার নিষেধাজ্ঞা থাকলও তার কক্ষে রয়েছে ওয়ালটন কোম্পানির একটি ফ্রিজ। হলের চতুর্থ তলার দক্ষিণ ব্লকের ৪০৮ নম্বর কক্ষে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের শীর্ষপদ প্রত্যাশী এক নেতা থাকেন। এই নেতার কক্ষে একটি আধুনিক বক্স খাট রয়েছে। রয়েছে সনি টিভি। এছাড়া হলের শীর্ষ এক নেতার কক্ষে অ্যাকুরিয়ামও দেখা গেছে।
গত ১১মে ছাত্রলীগের ২৯তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এই সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাত্রলীগ নেতাদেরকে ত্যাগী হওয়ার নির্দেশ দিয়ে বলেন, ‘ত্যাগ করাটা শিখতে হবে, যেকোনো ব্যাপারে ত্যাগ না করলে কিন্তু অর্জন করা যায় না। অর্জন তখনই করতে পারবা যখন কিছু দিতে পারবা।’ প্রধানমন্ত্রী ও ছাত্রলীগের সাংগঠনিক নেত্রী শেখ হাসিনার এই নির্দেশনা থাকলেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে দেখা যায় কর্মীরা কষ্টে জীবন-যাপন করলেও নেতাদের আয়েশী জীবন। এ নিয়ে কর্মীদের মনে চাপা ক্ষোভ রয়েছে। ফ্রিজ রাখার বিষয়ে ইমরান হোসেন বলেন, ওটা ব্যবহার করা হয়না। বাসায় পাঠাবেন বলে কক্ষে রেখেছেন। তবে একজন ছাত্রলীগ নেতা জানান, তিনি আগে ওই ফ্রিজটি ব্যবহার করতেন। হল কর্তৃপক্ষ নিষেধ করার পর আর ব্যবহার করেন না।
রাকিব নামে ছাত্রলীগের এক কর্মী বলেন, শত শত ছাত্রলীগ কর্মী ঘুমানোর জায়গাটুকুই পায় না। অথচ নেতারা সিঙ্গেল কক্ষে, টিভি, ফ্রিজ নিয়ে একক রাজত্বে বহুদিন ধরে আয়েশী জীবন যাপন করে আসছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হল শাখার এক সভাপতি বলেন, নেতারা পড়াশোনার পাশাপাশি রাজনীতি করে। তাদের সিঙ্গেল রুমের দরকার হয়। কিন্তু ওই নেতা আয়েশে জীবন-যাপনের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজী হননি।
হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হলের আবাসিক শিক্ষক ইফতেখারুল ইসলাম এ বিষয়ে বলেন, ‘একটি কক্ষে ফ্রিজ আছে জেনে আমি গিয়েছিলাম। কিন্তু গিয়ে তা পাওয়া যায়নি।’
একই ধরনের আরও সংবাদ