অধিকার ও সত্যের পথে

ব্যতিক্রমী প্রতিষ্ঠান “গ্রামীণ বিলাস”

 নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

আধুনিকতার ছোঁয়া ও কালের বিবর্তনে মহাকালের পাতা থেকে ক্রমেই হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামীণ সংস্কৃতির ঐতিহ্য, অজপাড়াগাঁয়ের কন্যা শিশুদের বউ-পুতুল, কিশোরদের চিরচেনা ডাংঙ্গুলি, কাবাডি, দাঁড়িয়াবান্ধা, গোল্লাছুট, কানামাছিসহ অসংখ্য খেলা, গ্রামীন মেলা, পুতুল নাচ, গরুর গাড়ী, বরযাত্রায় পালকি, নাগরদোলা, বায়োস্কোপ, যাত্রাগান, কবিগান, বাউলগান এসব একসময় আমাদের গ্রামীণ সংস্কৃতির ঐতিহ্য বহন করতো। এখন আধুনিকতার ছোঁয়ায় ঘরে ঘরে ভিডিও গ্রামের দৌরাত্ম্যে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামবাংলার ঐহিত্য। গ্রামবাংলার মানুষ দ্রুত নগরমুখী হচ্ছে কারণ গ্রামে নাগরিক সুবিধা শিক্ষা, স্বাস্থ্য সুবিধা, বিনোদন, নাগরিক নিরাপত্তা ও জীবিকা সংগ্রহ অপ্রতুল।

শহরের আধুনিক সুযোগ-সুবিধা নিয়ে দিনাজপুরের খানসামা থেকে নীলফামারীর দারোয়ানী যাওয়ার পথে আঙ্গারপাড়া চৌপথির একটু দূরে সবুজে ঘেরা গ্রামীণ জনপদে রাস্তার উত্তর দিকে গড়ে উঠেছে “গ্রামীণ বিলাস” নামের একটি ব্যতিক্রমী প্রতিষ্ঠান, যেটি দেখে অবাক হবারই কথা! এই রাস্তায় চলার সময় আপনার চোখ চলে যাবে (প্রতিষ্ঠানটিতে) নিজের অজান্তেই।

প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে এই প্রতিষ্ঠানটিতে রয়েছে সাশ্রয়ী দামে দেশী-বিদেশী পণ্যের বিপুল সমাহার। এখানে উল্লেখযোগ্য পণ্যের মধ্যে রয়েছে মোবাইল সেট, চার্জার, মেমোরী, কার্ড রিডার, কম্পিউটার এক্সেসরিজ, স্পোর্টস সামগ্রী, গিফট আইটেম, দেশী-বিদেশী কসমেটিক্স, এ্যাক্সপোর্ট কোয়ালিটির শার্ট, প্যান্ট, গেঞ্জী, শাড়ী, থ্রী-পিছ, ওড়না ও হাফশী, দই, রসমালাই, পোড়াবাড়ীর চমচম, আইসক্রিম, রেড়ি টি, কফি, ঠাণ্ডা পানি, বেকারী আইটেম এছাড়া ডিজিটাল মেশিনে ডায়াবেটিস ও প্রেসার চেক করার ব্যবস্থা, রয়েছে পাত্র/পাত্রীর শ্বাক্ষাতের সু-ব্যবস্থাও।

প্রতিষ্ঠানের মালিক বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অবসর প্রাপ্ত ওয়ারেন্ট অফিসার আব্দুল মান্নান(এসিসি) শিক্ষাবার্তা ডট কম প্রতিনিধিকে জানান শহরে এরকম অনেক প্রতিষ্ঠান দেখতে পাওয়া গেলেও গ্রামাঞ্চলে বিরল। শহরের ইট-কাঠ-পাথরের জীবন থেকে গ্রামের মাটির গন্ধময় আবহমান বাংলার গ্রামীণ মেহনতি মানুষ ও অবহেলিত জনপথকে হৃদয়ের গভীরে লালন করে ক্রেতার চাহিদা এবং সামর্থ্যরে কথা মাথায় রেখে বিভিন্ন দামের পণ্যের পসরা সাজিয়েছি, যাতে অত্র এলাকার লোকজনকে শহরে যেতে না হয়। এলাকার ক্রেতাসহ অনেক দূর-দুরান্ত থেকে আমার প্রতিষ্ঠানে ক্রেতার সমাগম দিন দিন বাড়ছে।

কলেজ পডুয়া অত্র এলাকার বাসিন্দা ক্রেতা কলমি  রায় জানান কম ও বেশি দামের সব ধরনের পণ্য, কাপড়, প্রসাধনী, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য “গ্রামীণ বিলাসে” পাওয়া যায় যা অন্য যেকোনো বাজারের চেয়ে পণ্যের গুণগত মান অনেক ভালো এবং দামেও সাশ্রয়ী।

কিছু ব্যতিক্রম চিন্তা ধারার শৈল্পিক গুনি মানুষকে খুজে পাওয়া যায় খুব কমই। এরই মাঝে “গ্রামীণ বিলাস” প্রতিষ্ঠানের মালিক আব্দুল মান্নান একজন। ব্যস্ততম শহরের মিডিয়া কর্মের পরিবেশ ছেড়ে আবহমান গ্রামবাংলার মেহনতি ও অবহেলিত মানুষের মধ্যে আধুনিকতার সেবা ও ছোঁয়া পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যেই তাঁর এ ক্ষুদ্র প্রয়াস।

একই ধরনের আরও সংবাদ