অধিকার ও সত্যের পথে

এবার বাসের ধাক্কায় কাটা পরলো শিশুর হাত

 শিক্ষাবার্তা ডেস্কঃ

এবার বাসের ধাক্কায় কাটা পরলো সুমি খাতুন (৮) নামে এক শিশুর হাত। রোববার দুপুরে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার বটতলা এলাকায় রাস্তা পারাপারের সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

এড়িকে শেরপুর থানা পুলিশ ভিআইপি ডিউটি নিয়ে ব্যস্ত থাকায় তারা শুধু শিশুটিকে হাসপাতালে পাঠিয়ে দায়িত্ব শেষ করেছে। পুলিশ হতদরিদ্র পরিবারের ওই শিশু সম্পর্কে কিছুই বলতে পারে না।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ফুলতলা গ্রামের দোকান কর্মচারী দুলাল খাঁর মেয়ে সুমি স্থানীয় ব্র্যাক স্কুলে প্রথম শ্রেণিতে পড়ে।

দুপুর ১টার দিকে শিশুটি বাড়ির কাছে বটতলা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সড়ক পার হবার চেষ্টা করছিল। এ সময় অজ্ঞাত একটি বাস তাকে ধাক্কা দিয়ে চলে যায়।

এতে তার দুই হাত ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়। বাম হাতটি প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পথচারীরা রক্তাক্ত শিশু সুমিকে উদ্ধার করে শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে দেন। সেখানে চিকিৎসকরা তার বাম হাত কেটে ফেলতে বাধ্য হন।

বিকালে তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শিশুটি হাসপাতালের বিছানায় যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে। এদিকে শিশুর সঙ্গে আসা বুদ্ধি প্রতিবন্ধী মা পাশে নির্বাক হয়ে বসে আছেন।

শেরপুর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, বটতলা এলাকায় দুর্ঘটনায় এক শিশু আহত হওয়ার কথা শুনেছেন। তাকে শুধু অ্যাম্বুলেন্সে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তারা মন্ত্রীর অনুষ্ঠান নিয়ে ব্যস্ত থাকায় ওই শিশু সম্পর্কে খোঁজ নিতে পারেননি।

বগুড়ার ছিলিমপুর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আজিজ মণ্ডল জানান, শেরপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় শিশু সুমির বাম হাত ছিঁড়ে গেছে। বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে তাকে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে আনা হয়েছে।

এর আগে গোপালগঞ্জে মোটর শ্রমিক হৃদয় শেখ (২১) ও ঢাকায় রাজীব হোসেন নামে এক শিক্ষার্থী বেপরোয়া গাড়ির রেষারেষিতে হাত হারান। পরে ১৩ দিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে হার মানেন রাজীব। গত ১৬ এপ্রিল রাতে রাজীব মারা যান।

একই ধরনের আরও সংবাদ