অধিকার ও সত্যের পক্ষে

লালমনিরহাটে অদম্য মেধাবী শারীরিক  প্রতিবন্ধী হাসিনা আক্তারের গল্প

 লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি মোস্তাফিজুর রহমানঃ

হাসিনা আক্তার
লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার দইখাওয়া গ্রামের দিনমজুর শাহেদ আলীর মেয়ে হাসিনা আক্তার মাত্র তিন বছর বয়সে টাইফয়েট জ্বরে দৃষ্টিহীন হয়ে পড়ে।তবে পড়ালেখার অদম্য বাসনায় ভর্তি হয় লালমনিরহাট জেলা সদরের হাড়িভাঙা এলাকায় বেসরকারি সংস্থা আরডিআরএস পরিচালিত একটি প্রতিবন্ধী শিক্ষা কেন্দ্রে। সেখান থেকে লালমনিরহাট চার্চ অব গড স্কুলে পরীক্ষা দিয়ে জেএসসি এসএসসি জয় করে হাসিনা। এবছর হাতীবান্ধা মহিলা কলেজের মানবিক শাখার শিক্ষার্থী হিসেবে স্থানীয় আলিমুদ্দিন কলেজ কেন্দ্রে শ্রুতি লেখকের সাহায্যে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে হাসিনা। হাসিনা আক্তার জানায়, পড়াশোনার পাশাপাশি ভালো গান গাইতে পারেন তিনি। পরিবারের অভাব অনাটনের কারণে তার কলেজে পড়া প্রায় বন্ধ হতে চলেছিল। তাই বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গান গেয়ে টাকা উপর্যন করে আবারও পড়াশোনা চালিয়ে আসছেন হাসিনা আক্তার। চোখের দৃষ্টি শক্তি না থাকায় দশম শ্রেণী পড়–য়া সুলতানা তার কাছে শুনে এইচএসসি পরীক্ষার উত্তরপত্র লিখছে। তাতে করে ফলাফল ভালো হবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি। তবে অভিষ্যতে পড়ালেখার খরচ চালাতে পারবে কিনা? এমন শংকা কাটছে না হাসিনা আক্তারের। হাতীবান্ধা আলিমুদ্দিন কলেজের কেন্দ্র সচিব ও অধ্যক্ষ সরওয়ার হায়াত খান বলেন, ‘দুই হাতে আঙুল না থাকলেও জান্নাতুল খুবই মেধাবী শিক্ষার্থী। কেন্দ্রে দুই প্রতিবন্ধী এইচএসসিতে ভালো ফলাফল করবে বলে বিশ্বাস করি।

একই ধরনের আরও সংবাদ