অধিকার ও সত্যের পক্ষে

শীতে কাঁপছে হাতীবান্ধার চরাঞ্চ‌লের মানুষ, শীতবস্ত্রের জন্য হাহাকার

 মোস্তাফিজুর রহমান(মোস্তফা) লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ
লালম‌নিরহা‌টে চর‌মে পৌ‌‌ছে‌ছে শী‌তের তীব্রতা,  শীতবস্ত্রের জন্য হাহাকার কর‌ছে চরাঞ্চ‌লের মানুষ! বন্যা পরবর্তী ধকল না সামলাতেই প‌শ্চি‌মে তিস্তা নদী আর উত্ত‌রে হিমাল‌য়ের বরফ গলা ঠান্ডা হঠাৎ করেই কমতে শুরু করেছে তাপমাত্রা। শৈত্য প্রবাহে ঘন কুয়াশা ও প্রচন্ড ঠান্ডায় নাকাল হয়ে পড়েছে জনজীবন। শীত জনিত বিভিন্ন রোগ-বালাই দেখা দিয়েছে । ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে, বোরো’র বীজতলা, আলুসহ বিভিন্ন ফসলের। চলতি শী‌তে তাপমাত্রা সর্ব‌নিম্ন পর্যা‌য়ে।

লালম‌নিরহাটে বুধবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৪ দশমিক ডিগ্রি সেলসিয়াস। এটিই এ পর্যন্ত এই জেলায় এই মৌসুমের সর্বনিন্ম তাপমাত্রা বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। লালম‌নিরহাট আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিস সু‌ত্রে জানা যায়, লালম‌নিরহাটে গত ৭দিন ধরে ৭ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে তাপমাত্রায় উঠানামা কর‌ছে। এর আ‌গে মঙ্গলবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিলো ৬ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না মানুষ। ঘন কুয়াশা ও কনক‌নে শী‌তে জনজীবন বিপর্যা‌স্ত হ‌য়ে প‌ড়ে‌ছে। গত এক সপ্তা‌হে রাতভর বে‌ড়ে‌ছে শী‌তের ঠান্ডার তীব্রতা আর বৃষ্টির মত পড়‌ছে ঘন কুয়াশা। তীব্র শীতে সবচেয়ে দুর্ভোগে পড়েছে ছিন্নমুল ও নিন্ম আয়ের মানুষ। সকাল গ‌ড়ি‌য়ে মধ্য দুপু‌রেও মিল‌ছেনা সূ‌র্যের দেখা।

ঘন কৃয়াশার কারণে সকালে ১০ ফুট দুরেও কোন কিছু দেখা যাচ্ছেনা। সড়কে যানবাহন হেড লাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে। এর পরেও বাড়ছে দূর্ঘটনা। শীতবস্ত্রের আশায় গরীব ছিন্নমূল মানুষ চেয়ে আছে।

গত বন্যায় হাজার হাজার ঘরবা‌ড়ি, বসত‌ভিটা, আবা‌দি ফসল হ‌য়ে‌ছে লণ্ডভণ্ড। ফসল বিনষ্ট হওয়ায় জেলায় অভাব অনাটন পৌ‌ছে‌ছে স‌র্বোচ্চ পর্যা‌য়ে। ফ‌লে শী‌তের তীব্রতায় কাপড়ের অভা‌বে চরম বিপা‌কে প‌ড়ে‌ছে জেলার ০৫ উপ‌জেলার ছিন্নমুল, খে‌টে খাওয়া নদীভাঙ্গ‌নের কব‌লে প‌ড়ে ভি‌টেমা‌টি ও শয় সম্বলহীন লক্ষাধিক মানুষ।

বি‌শেষ ক‌রে হাতীবান্ধা উপ‌জেলার চরাঞ্চ‌লসহ খে‌টে খাওয়া শ্রমজী‌বিরা প্রচন্ড ঠান্ডায় মা‌ঠে যে‌তে পার‌ছেনা। ঠান্ডার কার‌নে স্কুলগামী শিক্ষার্থী ও শিশুরা প‌রে‌ছে চড়ম বিপা‌কে। জেলার নদনদী তীরবর্তী এলাকার চর ও দ্বীপ চ‌রে বে‌শি ক‌রে ঠান্ডা অনুভুত হওয়ায় এখানকার মানুষজন খড়কু‌টো জ্বা‌লি‌য়ে শীত নিবার‌ণের চেষ্টা কর‌ছে। তীব্র শী‌তে দু‌র্ভোগ বে‌ড়ে‌ছে গবা‌দি পশুপা‌খির। এ‌দি‌কে শী‌তের তীব্রতায় হাসপা‌ল গু‌লো‌তে ডাই‌রিয়া ও শীতজনিত রো‌গীর সংখ্যা বে‌ড়ে চ‌লে‌ছে। গত এক সপ্তা‌হে জেলার হাসপাতাল গু‌লো‌তে নিই‌মো‌নিয়া ও ডাই‌রিয়া রো‌গের ক‌য়েকশত রোগী ছিল ব‌লে হাসপালসু‌ত্রে জানা গে‌ছে। এ‌দের ম‌ধ্যে শতা‌ধিক শিশু।
এভা‌বে শী‌তের তীব্রতা বাড়‌তে থাক‌লে শীত জনিত রে‌া‌গে মহামারী আকার ধারণ কর‌তে পা‌রে। সরকারি ভা‌বে শীতার্ত‌দের মা‌ঝে কিছু কম্বল বিতরণ করা হ‌লেও তা প্র‌য়োজ‌নের তুলনায় অপ্রতুল্য। তাও আবার দলীয় নেতাকর্মী, উপ‌জেলা চেয়ারম্যান , ইউ‌পি চেয়ারম্যান ও মেম্বারের মা‌ঝে বিতরণ করা হয়। যার ফ‌লে শীতবস্ত্র থে‌কে ব‌ঞ্চিত হ‌চ্ছে রাজ‌নৈ‌তিক প্র‌তি‌হিংসা ও স্থানীয় জন প্রতি‌নি‌ধির ভোট বি‌রোধী অ‌ধিকাংশ অসহায় মানুষ।
বি‌শেষ ক‌রে চরাঞ্চ‌লের নদীভাঙ্গনের কব‌লে পড়া মানুষজ‌ন শীতবস্ত্র থে‌কে বে‌শি ক‌রে বঞ্চিত হ‌য়ে‌ছেন। তাই আত্মঃ মানবতার সেবায় এ‌গি‌য়ে এ‌সে চরাঞ্চলের অসহায় শীতার্ত‌দের মা‌ঝে মোটা কাপড় বা বস্ত্র বিতর‌ণে সরকা‌রের পাশাপা‌শি বি‌ভিন্ন বেসরকা‌রি প্র‌তিষ্ঠান, এন‌জিও, শিল্প প্র‌তিষ্ঠান ও ব্য‌ক্তি‌কে এ‌গি‌য়ে আসার আহবান জানা‌চ্ছে এই অঞ্চ‌লের অসহায় মানুষ, সাংবা‌দিক সমাজসহ সুধীজ‌নেরা।

প্র‌তিবা‌রের ন্যায় এবা‌রেও হাতীবান্ধা রি‌পোর্টার্স ক্লাবের সদস্যগন চরাঞ্চ‌লের অসহায় মানুষের পা‌শে দাড়া‌নোর জন্য শুরু ক‌রে‌ছে শীতবসত্র সংগ্রহ ও বিতরণ কার্যক্রম।
আর শীতবস্ত্র বিতরণকারী কোন ব্যক্তি বা প্র‌তিষ্ঠানকে সর্বাত্মক সহ‌যোগীতা করার জন্য তারা দৃঢ় প্র‌তিশ্র‌তিবদ্ধ।

একই ধরনের আরও সংবাদ