অধিকার ও সত্যের পথে

মার্চে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ

আগামী ২৭-৩১ মার্চের মধ্যে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট মহাকাশে উৎক্ষেপণ হবে বলে জানিয়েছেন নতুন তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। মন্ত্রিসভা রদবদলের আগে তিনি ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছিলেন। রোববার সচিবালয়ে প্রথম অফিস করেন তারানা হালিম। পরে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে পরিচিতির পর তথ্য অধিদফতরের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন তিনি। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এসময় তার পাশে ছিলেন।

দুই বছর চার মাস ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের দায়িত্ব পালনের সময় বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে তারানা হালিম বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের জন্য তারিখটি আমি সারপ্রাইজ হিসেবে রেখেছিলাম। জবাবদিহিতার জায়গা থেকে বলছি, তাদের সর্বশেষ নির্ধারিত সময় বলে দিয়েছেন যে, মার্চের ২৭-৩১ তারিখের মধ্যে মহাকাশে উৎক্ষেপিত হবে। এসব কার্যক্রম মোটামুটি সম্পন্ন করা হয়ে গেছে।

ফ্রান্সের থ্যালাস এলিনিয়া স্পেসের ফ্যাক্টরিতে তৈরি স্যাটেলাইটির নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার পর ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের কেপ ক্যানাভেরাল থেকে উৎক্ষেপণ করা হবে। কিন্তু ফ্লোরিডায় ইরমা ঝড়ের কারণে ডিসেম্বর থেকে শিডিউল পিছিয়ে নেয়া হয়েছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের গ্রাউন্ড স্টেশন স্থাপনের জন্য গাজীপুরের জয়দেবপুর ও রাঙামাটির বেতবুনিয়ায় বিকল্প স্টেশন হিসেবে রাখা আছে।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে ৪০টি ট্রান্সপন্ডার রয়েছে। এটি একটি বাণিজ্যিক স্যাটেলাইট এবং আলাদাভাবে স্পট থেকে তৈরি হওয়া নিজস্ব স্যাটেলাইট। বাংলাদেশকে সার্ভিস দেয়ার জন্য এতে আলাদাভাবে ২০টি ট্রান্সপন্ডার রাখা হয়েছে। এই স্যাটেলাইটের মেয়াদ ১৫ বছর। স্যাটেলাইটের জন্য অরবিটাল স্লটও কেনা হয়েছে। স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের পর বিদেশি স্যাটেলাইটের ভাড়া বাবদ বছরে ১৪ মিলিয়ন ডলার সাশ্রয় হবে।

২০১৫ সালের ২১ অক্টোবর সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে স্যাটেলাইট সিস্টেম কেনার প্রস্তাব অনুমোদন করে। প্রায় দুই হাজার কোটি টাকার স্যাটেলাইট সিস্টেম কিনতে ১১ নভেম্বর থ্যালাসের সঙ্গে বিটিআরসির চুক্তি সই হয়। স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে হংক সাংহাই ব্যাংকিং করপোরেশনের (এইচএসবিসি) সঙ্গে প্রায় এক হাজার ৪০০ কোটি টাকার ঋণচুক্তি করে বিটিআরসি।

একই ধরনের আরও সংবাদ