অধিকার ও সত্যের পথে

কালের বিবর্তনে বিলুপ্তির পথে ঢেঁকি

এমন এক সময় ছিল, যখন ঢেঁকি ছিলো গ্রাম বাংলার প্রতিটি কৃষকের। সে সময়টিতে ধান থেকে চাল ভাঙ্গার কাজে ঢেঁকি ছাড়া অন্য কোন বিকল্প ব্যাবস্থা ছিলো না। ঢেঁকিই ছিলো ধান ভাঙ্গা, চাল ভাঙ্গা, ডাল ভাঙ্গানো, পিঠার গুড়া করার একমাত্র অবলম্বন।

হালুয়াঘাট উপজেলাসহ ময়মনসিংহের ধোবাউড়া, ফুলপুর, তারাকান্দা, গফরগাঁও, ত্রিশাল, ইশ্বরগঞ্জ, ফুলবাড়িয়া সহ বিভিন্ন উপজেলায় পরিচিত যন্ত্র ছিলো ঢেঁকি।

কালের বিবর্তনে চিরচেনা ঐতিহ্যবাহী এই ঢেঁকি নামক যন্ত্রটি আজ বিলুপ্তির পথে। দুই দশক আগেও যে ঢেঁকি  চাল তৈরীর একমাত্র মাধ্যম ছিল সেই ঢেঁকি নামক চিরচেনা জিনিসটি কালের বিবর্তনে আজ তেমন চোখে না পড়লেও কিছু কিছু গৃহস্থের ঘরে আজও ঐতিহ্য হিসেবে শোভা পাচ্ছে।

চিরচেনা ঐতিহ্যবাহী এই ঢেঁকি

সোমবার হালুয়াঘাট উপজেলার ২ নং জুগলী ইউনিয়নের জিগাতলা গ্রামে নুরুল ইসলামের (৬০) এর বাড়িতে ঢেঁকির দেখা মেলে। নুরুল ইসলামের পুত্রবধু আমেনা তার শাশুড়িকে সঙ্গে নিয়ে পিঠার গুঁড়া তৈরিতে ব্যাস্ত। ঢেঁকি কাঠ দিয়ে তৈরী। এটা তৈরীর পর পিছনে একটি ছিদ্র করে তার মধ্যে একটি শলাকা জাতীয় কাঠ ঢুকানো হয়। যার নাম ‘আগশালী’ বলে এবং সামনের দিক উপর নিচ করে ছিদ্র করে একটি কাঠ খন্ড ঢুকানো হয়  এর নাম ‘মোহনা’ বলে।

দুটি কাঠ খন্ড মাটিতে পুতা হয় আগশালী রাখার জন্য যার নাম ‘পোয়া’ এবং মোহনা যে জায়গায় রাখা হয় সেখানে একটি চাকা আকৃতির কাঠ মাটির নিচে পুতে রাখা হয় যার নাম ‘গড়’ বলা হয়। এই গড় বেশীর ভাগই গাছের গুড়ি দিয়ে তৈরী করা হয়। আর এই গড়ে ধান রেখে ঢেঁকির পিছনে পা দিয়ে চাপ দিলে ধান ভানা শুরু হয় ।

এই ঢেঁকি দিয়ে শুধু যে ধান ভানা হয় তা নয়, শীতকালে কুমড়া দিয়ে বড়ি তৈরী, গম দিয়ে আটা তৈরী, আলো চাউল দিয়ে গুড়া তৈরী ইত্যাদি কাজে ব্যবহৃত হয়। একসময় ঢেঁকির ঠক ঠক শব্দে ঘুম ভাঙ্গত শিশুদের। কিন্তু আজ তা আর চোখেই পড়ে না। হাতে গোনা কিছু কৃষকের বাড়ীতে ঢেঁকি চোখে পড়লেও তার কোন ব্যবহার নেই। এমন এক সময় আসবে, গ্রাম বাংলার কৃষদের বাড়ীতে মোটেও আর ঢেঁকি দেখা যাবে না এবং ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে এই ঢেঁকি শুধু কাল্পনিক জগতের এক বস্তু হয়ে থাকবে।

আকনপাড়া গ্রামের বাবুল দেবনাথ বলেন, তাদের গ্রামের বাড়িতে একসময় ঢেঁকি ছিলো। এখন আর তার ব্যাবহার নেই বলে তিনি জানান।

২ নং জুগলি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কামরুল হাসান জানান, দুই দশক পুর্বে প্রতিটি ঘরে ঘরে ঢেঁকি দেখা যেত। কিন্তু বর্তমানে পুরো এলাকা ঘুরলে দু’একটি পাওয়া যাইতে পারে। এখনো কেউ কেউ পিঠার গুড়া করার জন্যে সখ করে ঢেঁকি ব্যাবহার করে থাকে বলে তিনি জানান।

একই ধরনের আরও সংবাদ