অধিকার ও সত্যের পথে

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের হৃদয়ের রক্ত ঝরা রোধ কে করবে

মো:মনিরুজ্জামান মনির, সহকারী শিক্ষক

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ঝরে পড়া রোধ করার জন্য সরকারের উচ্চ(প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর) পর্যায় থেকে নিম্ন পর্যায় পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের চেষ্টার কোনো ত্রুটি নেই। কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে যে,
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তেরর সবচেয়ে অবহেলিত ও মানসিক নির্যাতিত সম্প্রদায় হচ্ছে সহকারী শিক্ষক পরিবার। বিশ্বের উন্নত দেশের প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্হাপনায় শিক্ষকরা যে মর্যাদায় আছেন, সেই তু্লনায় বাংলাদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরণের বৈষম্যের শিকার হয়ে আসছে। যা ইতোমধ্যে সকল মিডিয়ায় স্পষ্ট ভাবে প্রকাশ পেয়েছে এবং প্রচারও হয়েছে। শিক্ষক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দাবী দাওয়া সম্পর্কে কর্তৃপক্ষেকে অবহিত করেছে। কিন্তু অদ্যাবধি পর্যন্ত কেউ কোনো আশার আলো দেখতে পাচ্ছে না।বরং বিদ্যালয়ের প্রাণশক্তি সহকারী শিক্ষকদের বেতন ও প্রধান শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য দিনে দিনে অতি দ্রুত গতিতে বেড়েই চলছে। যা সহকারী শিক্ষকদের মনের উপর এ ধরণের স্নায়ু নির্যাতন। এ দেশের বিভিন্ন বিভাগে সকল চাকুরিজীবিদের প্রোমোশনের ধারাবাহিকতা আছে কিন্তু প্রাথমিক শিক্ষকদের ক্ষেত্রে এমন বিমাতাসুলভ আচরণ করা সত্যই খুবই কষ্টের।সেই কষ্টে সহকারী শিক্ষকদের মনের শরীরের শিরা ধমনী দিয়ে এক ধরণের কষ্টের রক্ত ঝরতেছে। আর শিক্ষকদের হৃদয়ের এই রক্ত ঝরা বন্ধ না করে কীভাবে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ঝরে পড়া রোধ করবে, তা কর্তৃপক্ষের বিবেচনায় রাখা উচিত ।

একই ধরনের আরও সংবাদ