অধিকার ও সত্যের পথে

বরগুনার বেতাগী উপজেলার শিক্ষিকাকে ধর্ষণের ঘটনায় সিলেটের শ্রেষ্ট শিক্ষকদের নিন্দা ও ক্ষোভ

বরগুনার বেতাগী উপজেলার জনৈক শিক্ষিকাকে স্বামীকে আটকে রেখে শ্রেণিকক্ষে ধর্ষণের ঘটনায় সিলেটের বারটি উপজেলার এ বছরে শ্রেষ্ট নির্বাচিত শিক্ষক-শিক্ষিকারা এক যৌথ বিবৃতিতে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। এঘটনায় আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জন্য পুলিশ প্রশাসনের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান।তারা বলেন একটি সভ্য দেশে এটা নজীরবিহীন ঘটনা। তারা যত বড় প্রভাবশালী হোক, তাদেরকে দ্রুত বিচারের আওতায় আনতে হবে।বিচারের মাধ্যমে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে যাতে ভবিষ্যতে এরকম নজীরবিহীন ঘটনার জন্ম না হয়। বিবৃতিদাতারা হলেন সিলেট জেলার বালাগঞ্জ উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষক মোহাম্মদ আজাদ মিয়া এবং শ্রেষ্ট শিক্ষিকা গীতা রাণী দেব, সদর উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষক সঞ্জয় কুমার নাথ, কোম্পানিগঞ্জ উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষক মোঃ ইয়াকুব আলী এবং শ্রেষ্ট শিক্ষিকা আফরোজা ইয়াসমীন, গোলাপগঞ্জ উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষক হাসান আহমদ এবং শ্রেষ্ট শিক্ষিকা উমা চক্রবর্তী , বিশ্বনাথ উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষক মোঃ আলমাছ আলী, শ্রেষ্ট শিক্ষিকা শিল্পী রাণী পাল, কানাইঘাট উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষক হেলাল উদ্দিন আহমদ, শ্রেষ্ট শিক্ষিকা শামীম আরা বেগম, জকিগঞ্জ উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষক এইচ,এম কামরুজ্জামান এবং শ্রেষ্ট শিক্ষিকা রাহেলা বেগম, জৈন্তাপুর উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষক রোমেনা ইয়াসমিন, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষিকা মিনতি মালাকার এবং শ্রেষ্ট শিক্ষক ছয়ফুল আলম রাজ্জাক, দক্ষিণ সুরমা উপজেলা শ্রেষ্ট শিক্ষক আব্দুল গফুর এবং শ্রেষ্ট শিক্ষিকা আয়শা আক্তার, বিয়ানিবাজার উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষক খালেদ আহমদ, গোয়াইনঘাট উপজেলার শ্রেষ্ট শিক্ষক ফারুক আহমদ এবং শ্রেষ্ট শিক্ষিকা মালেকা বেগম প্রমুখ।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো